বিশ্বের সবচেয়ে ব্যয়বহুল ১০টি কেক

জন্মদিন বলুন আর বিবাহ বার্ষিকী বলুন, পৃথিবী জুড়ে যেকোনো উৎসব বা বিশেষ দিন উদযাপনের অবিচ্ছেদ্য অংশ কেক। কেক খেতে সবাই ভালোবাসেন, যেকোনো ধরনের বিশেষ দিন উদযাপন করার জন্য কেকের বিকল্প নাই। বিভিন্ন দিবসে বিভিন্ন ধরনের কেক পাওয়া যায়। যেমন ভালোবাসা দিবস, বাবা দিবস, মা দিবস, জন্মদিন, বিবাহ বার্ষিকী, ক্রিসমাসসহ ভিন্ন ভিন্ন দিনগুলোতে ভিন্ন রকমের কেক কাটা হয়।

দিবস অনুযায়ী যেমন কেকের ভিন্নতা দেখা যায়, তেমনি বিভিন্ন রঙ এবং ফ্লেভার অনুসারেও বিভিন্ন ধরনের কেক পাওয়া যায়। বিভিন্ন ধরনের কেকের দাম বিভিন্ন রকমের হয়। তবে আজ আপনাকে এমন ১০টি কেকের সাথে পরিচয় করিয়ে দিবো যেগুলোর দাম শুনে আপনার চোখ ছানাবড়া হয়ে যাবে।

প্রিন্সেস কেটের ফিওনা কেয়ার্নস রয়্যাল কেক

মূল্য : ৭৮ হাজার ডলার

তালিকার দশম অবস্থানে রয়েছে ব্রিটিশ রাজপরিবারের জন্য তৈরি একটি রাজকীয় কেক। ২০১১ সালে দীর্ঘদিনের প্রেমকে বিবাহকে রূপ দিয়ে ভালোবাসার সংসার গড়েন প্রিন্স উইলিয়াম এবং কেট মিডলটন। তাদের বিয়ের অনুষ্ঠানের জন্য ফিওনা কেয়ার্নস এবং তার ৫০ সদস্যের কেক ডিজাইনার ও বেকার দল দীর্ঘ পাঁচ সপ্তাহে রাজকীয় কেকটি তৈরি করেন।

প্রিন্সেস কেটের ফিওনা কেয়ার্নস রয়্যাল কেক; Source: townandcountrymag.com

এই কেকের সাথে কেট মিডলটনের বিয়ের পোশাকের ১৭টি জড়ি বা ফিতা এবং গোলাপ কেকের সাথে অসাধারণ ভাবে জুড়ে দেওয়া হয়। ব্রিটিশ রাজপরিবারের উত্তরাধিকারী প্রিন্স উইলিয়ামের বিয়ের এই কেকটির দাম ছিলো ৭৮ হাজার ডলার।

নাবিউ ইকারার প্লাটিনাম কেক

মূল্য : ১ লাখ ৩০ হাজার ডলার

২০০৭ সালে এই কেকটি তৈরি করেন জাপানিজ পেস্ট্রি শেফ নাবিউ ইকারা। এই কেকটি মূলত প্লাটিনাম গিল্ড ইন্টারন্যাশনালে একটি কোম্পানি প্লাটিনামের গহনা বিক্রির জন্য প্রচারণা চালানোর উদ্দেশ্য ব্যয়বহুল করে তৈরি করে। কেকটিকে সাঁজানো হয়েছিলো প্লাটিনামের পেনডেন্ট, নেকলেস এবং নোসপিন বা নাকের ফুল দিয়ে।

নাবিউ ইকারার প্লাটিনাম কেক; Source: eonline.com

কেকটি তৈরি করতে খরচ হয় ১ লাখ ৩০ হাজার ডলার। খাবারযোগ্য প্লাটিনামের ব্যবহার কেকটির মূল্য বৃদ্ধি করে অনেকগুণ। প্লাটিনাম ছাড়াও কেকটি তৈরিতে ব্যবহার করা হয় হাওয়াই মিঠাই এবং তুষারকণা। এই কেকটি অনেক নারীকে উৎসর্গ করা হয়েছিল যাদের মধ্যে ছিলেন মডেল চি কুমাসাওয়া এবং অভিনেত্রী রিঙ্কো কিকুচি।

মাসামি মিয়ামোতোর ডায়মন্ড চকলেট কেক

মূল্য: ৮ লাখ ৫০ হাজার ডলার

পেস্ট্রি শেফ মাসামি মিয়ামোতো তৈরি করেছেন বিশ্বের অষ্টম দামি কেক যার মূল্য ৮ লাখ ৫০ হাজার ডলার। জহুরি সা-বার্থ কেকের চকলেটের সাথে নিঁখুতভাবে ডায়মন্ড জুড়ে দেন। কেকটি জাপানে এক ছুটির মৌসুমে ক্রেতাকে আকর্ষণ করার জন্য একটি ডিপার্টমেন্টাল স্টোরের পক্ষ থেকে তৈরি করা হয়েছিলো।

মাসামি মিয়ামোতোর ডায়মন্ড চকলেট কেক; Source: steemit.com

কেকটি জাপানের ওসাকার তাকাশিমায়া ডিপার্টমেন্টাল স্টোরের দরজার কাছে রাখা হয় যাতে করে অধিক ক্রেতা সমাগম হয় এবং বিক্রি বৃদ্ধি পায়। কেকটি তৈরিতে মোট ৫০ ক্যারট ডায়মন্ড ব্যবহার করা হয়েছে। কেকটি যদিও বিক্রির জন্য সেই ডিপার্টমেন্টাল স্টোর রাখা হয়েছিলো কিন্তু এখন পর্যন্ত কেকটি কেউ কেনেনি।

লুস্টার ডাস্ট কেক

মূল্য: ১.৩ মিলিয়ন ডলার

এই তালিকায় যে কয়টি কেক রয়েছে, তার মধ্যে একদম আলাদা ধরনের কেক এটি। এই কেকটি খাবারযোগ্য নয়। লুস্টার ডাস্ট কেকটি ২০১০ সালে ডালাস ব্রাইড ফেয়ারে তৈরি করা হয়। কেকটি যৌথভাবে তৈরি করে ডালাস ডেলিসিয়াস কেকস এবং ডালাস গোল্ড অ্যান্ড সিলভার এক্সচেঞ্জ। কেকটির বহিরাবরণ তৈরি করা হয়েছে লুস্টার ডাস্টের কণা দিয়ে।

লুস্টার ডাস্ট কেক; Source: steemit.com

লুস্টার ডাস্ট হচ্ছে টাইটেনিয়াম ডাইঅক্সাইড, আয়রন অক্সাইড এবং মাইকার গুড়ো। কেকটি সুন্দরভাবে সাঁজানোর জন্য খরচ করা হয়েছে ১ মিলিয়ন ডলারের রত্ম। যদি এটি সত্যিকারভাবে কোনো কেক হতো তবে এটির ওজন হতো ২০০ পাউন্ড।

আফ্রিকা কেক

মূল্য: ৫ মিলিয়ন ডলার

আফ্রিকা কেকটি দামের দিক থেকে পূর্বের কেকগুলোর চেয়ে অনেক এগিয়ে। ৫ মিলিয়ন ডলার মূল্যের এই কেকটি তৈরি করেছে জাপানের রাজধানী টোকিও শহরের একটি জুয়েলারির দোকান। এই কেকটি আফ্রিকা মহাদেশের আকৃতি করে তৈরি করা হয়েছে। তবে কেকটির সবচেয়ে মজার বিষয় হচ্ছে, এই কেকে ২০০০ ডায়মন্ড ব্যবহার করা হয়েছে।

আফ্রিকা কেক; Source: toadmire.com

ডায়মন্ডগুলো কেকটির চারদিকের প্রান্তদিয়ে বসানো হয়েছে এবং আফ্রিকার দক্ষিণ অংশে ডায়মন্ডের খনি থাকার কারণে কেকের দক্ষিণ অংশে বাকি হীরাগুলো বসিয়ে ডায়মন্ডের খনি নির্দেশ করা হয়েছে।

নাহিদ পারসার লাক্সারি ব্রাইডাল শো কেক

মূল্য: ২০ মিলিয়ন ডলার

বেভারলি হিলস লাক্সারি ব্রাইডাল শো সম্পর্কে যারা খোঁজ-খবর রাখেন, তারা প্রায় সবাই জানেন প্রতিবছর এই ব্রাইডাল শো যেমন উন্নত হচ্ছে তেমনি অঢেল অর্থও খরচ হচ্ছে। তবে ২০০৬ সাল ছিলো সবচেয়ে আলাদা এবং সবচেয়ে সেরা একটি বছর। এই অনুষ্ঠান কর্তৃপক্ষ সিদ্ধান্ত নেয় তাদের ওয়েডিং ইভেন্টের সাথে মিল রেখে বিশাল এক কেক তৈরির।

নাহিদ পারসার লাক্সারি ব্রাইডাল শো কেক; Source: wonderlist.com

কেকটি তৈরি করেন নাহিদ পারসা। কেকটিতে ব্যবহার করা হয় সোনার কণা এবং ডায়মন্ড। শেষ পর্যন্ত কেকটি বিক্রি হয়েছিল কিনা জানা না গেলেও কেকটি এক কথায় অপূর্ব ছিলো।

ডেভোরাহ রোজ ডায়মন্ড গালা কেক

মূল্য: ৩০ মিলিয়ন ডলার

স্যোসাল লাইফ ম্যাগাজিনের প্রধান সম্পাদক ডেভোরাহ রোজ তার দেওয়া পার্টির জন্য ৩০ মিলিয়ন ডলার খরচ করে কেকটি তৈরি করেন। ডায়মন্ড গালা কেকটি তৈরি করেন কেক বস নামক রিয়েলেটি শোর উদ্ভাবক।

ডেভোরাহ রোজ ডায়মন্ড গালা কেক; Source: wonderlist.com

ডেভোরাহ রোজ রিয়েলেটি শো’র সাথে যোগাযোগ করেন এবং তাদের অনুরোধ করেন ৩০ মিলিয়ন ডলারের একটি কেক তৈরি করে দিতে। পরবর্তীতে বাডি এবং তার দল ৩০ মিলিয়ন ডলারের কেকটি তৈরি করেন। কেকটিতে ব্যবহার করা হয় ডায়মন্ড, রুবি, পান্না এবং নীলকান্তমনির মতো বহু মূল্যের রত্ন।

ডিমুথু কুমারাসিং পাইরেটস ফ্যান্টাসি কেক

মূল্য: ৩৫ মিলিয়ন ডলার

বিশ্বের সবচেয়ে দামি কেকের তালিকায় তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে ডিমুথু কুমারাসিং পাইরেটস ফ্যান্টাসি কেক। ২০১২ সালে এই কেকটি বিশ্বের সবচেয়ে দামি কেকের রেকর্ড গড়ে। ৬ বছর পরও কেকটি তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে। কেকটি তৈরি করেন শেফ ডিমুথু কুমারাসিং।

ডিমুথু কুমারাসিং পাইরেটস ফ্যান্টাসি কেক; Source: wonderlist.com

কেকটি পাইরেটসদের জাহাজের অনুরূপ করে তৈরি করা হয়েছে, যেখানে লুঠ করা দামি দামি জিনিসপত্র রয়েছে। লুঠ করা জিনিসপত্রগুলো সাজানো হয়ে ঝলমলে বিরল কিছু রত্ন দিয়ে। এই কেকে দামি ব্রোচ, রিং এবং নেকলেস ব্যবহার করা হয়েছে। তবে সবচেয়ে মজার দিক হচ্ছে এই কেকের ১০টি স্তর রয়েছে। প্রতিটি স্তরের ফ্লেভার আলাদা যার মধ্যে রয়েছে কুমড়া, ধুন্দুল এবং নারকেল।

দ্য ন্যাশনাল গে ওয়েডিং শো’স কেক

মূল্য: ৫২ মিলিয়ন ডলার

২০১৩ সালে এই কেকটি পাইরেটসকে ছাড়িয়ে বিশ্ব রেকর্ড গড়ে। ২০১৩ সালে এই কেকটি লিভারপুলে ন্যাশনাল গে ওয়েডিং শো উপলক্ষ্যে তৈরি করা যায়। ‘কেক’ নামের একটি বেকারি এই দামি কেকটি ডিজাইন এবং তৈরি করে।

দ্য ন্যাশনাল গে ওয়েডিং কেক; Source: cakesbytosan.wordpress.com

৮টি স্তরের কেকটি উচ্চতায় ৫ ফিট। ৫২ মিলিয়ন ডলারের কেকটিতে ব্যবহার করা হয়েছে ৪০০০ ডায়মন্ড।

ডেবি উইংহামের রানওয়ে কেক

মূল্য: ৭৫ মিলিয়ন ডলার

বিশ্বের সবচেয়ে দামি কেকের রেকর্ড ধরে আছে ডেবি উইংহামের রানওয়ে কেক। ৭৫ মিলিয়ন ডলারের কেকটি বাড়ি এবং দামি গাড়ীর মূল্যকেও ছাড়িয়ে গেছে। কিন্তু এই কেকের মালিক যখন কেকটি কেনেন তখন তিনি জানতেন না এটি বিশ্বের সবচেয়ে দামি কেক।

ডেবি উইংহামের রানওয়ে কেক; Source: cnbc.com

আরব আমিরাতের এক ব্যক্তি তার মেয়ের জন্মদিনের জন্য বিশেষ কিছু খুঁজছিলেন। অবশেষে তিনি এই কেকটি কেনার জন্য কেকের ডিজাইনার ডেবি উইংহামকে ফোন করেন। এই একটি কেক ডেবি উইংহামের জীবন বদলে দেয়। কেকটি তৈরি করা হয়েছে ফ্যাশন রানওয়ের সদৃশ করে।

লম্বায় কেকটি ৬ ফিট কেকটিতে ফ্যাশন রানওয়েতে ফ্যাশনেবল পোশাক এবং এক্সেসরিজসহ মডেলও রয়েছে। কেকটির এত দামের পিছনে রয়েছে ৪৫ মিলিয়ন ডলারের বিভিন্ন রঙের ডায়মন্ডের ব্যবহার। এই কেকটি তৈরি করতে অনেক মাথা খাটাতে হয়েছে, সৃষ্টিশীলতার পরিচয় দিতে হয়েছে এবং অনেক পরিশ্রম করতে হয়েছে। সে জন্যই আজ কেকটি বিশ্বের সবচেয়ে দামি কেক।

Featured Image: cnbc.com

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.