বিশ্বজুড়ে সেরা ১৫টি শ্যাম্পুর ব্র্যান্ড ও তাদের ইতিহাস

সানসিল্ক শ্যাম্পুর বিজ্ঞাপনে মডেল আলিয়া ভাট ; Source: twitter.com

চুলের যত্ন ও ধৌতকরণে শ্যাম্পুর প্রয়োজনীয়তা অপরিহার্য। চলুন দেখে আসি, বিশ্বজুড়ে কোন পনেরটি শ্যাম্পু  ব্র্যান্ড শ্যাম্পু সেরা অবস্থানে রয়েছে এবং কীভাবে এসব কসমেটিকস প্রতিষ্ঠানের যাত্রা শুরু হয়েছিল।

১. ব্রায়োজিও

ব্রায়োজিও শ্যাম্পু ; Source: nashville.com

ইতালিয়ান ব্রায়ো শব্দটির মানে প্রাণবন্ত আর লাতিন জিও শব্দটির অর্থ পার্থিব বা প্রাকৃতিক। ন্যান্সি টোয়াইনের   দাদী বাড়ির পেছনের উঠোনে প্রাকৃতিক লোশন,চুল ও  ত্বকের যত্নে পণ্য উৎপাদনের নানা উপকরণ চাষ করতেন, পারিবারিকভাবে নিজেদের রান্নাঘরেও সাবান তৈরি করা হত। সেখান থেকেই ন্যান্সির আগ্রহ জন্মে আর তাই এই আফ্রো-আমেরিকান নারী ২৭ বছর বয়সে, ওয়াল স্ট্রিটে নিজের সাত বছরের বিলাসী ক্যারিয়ার ছেড়ে দিয়ে স্বাধীন উদ্যোক্তা বনে যান। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পশ্চিম ভার্জিনিয়ায় ২০১৩ সালে ব্রায়োজিও নামের হেয়ারকেয়ার প্রতিষ্ঠানটির জন্ম  হয়।

২.  লাশ সলিড শ্যাম্পু

এখানে লাশ মানে নিশ্চয়ই মৃত ব্যক্তি নয়, থিকথিকে আর কঠিন শ্যাম্পু বলেই এর এমন নামকরণ। সাবানের মতই এই সলিড শ্যাম্পু ভেজা চুলে ঘষে ব্যবহার করতে হয়। ফলের রস থেকে সামুদ্রিক লবণ, কলা সহ নানান ফ্লেভারে এই ন্যাচারাল শ্যাম্পু পাওয়া যায়।

লাশ সলিড শ্যাম্পু ; Source: swatchandreview.com

ইংল্যান্ডের ডরসেটে অবস্থিত একটি বিউটি সেলুনে মার্ক কন্সটেনটাইন নামের একজন ত্বক বিশেষজ্ঞ ও লিজ ওয়েইর নামের একজন সৌন্দর্যবিদের দেখা হয়েছিল। সেই পরিচয়ের সূত্র ধরেই ১৯৯১ সালে তারা লাশ কসমেটিকস প্রতিষ্ঠা করেন।

৩.  অব্রি অরগানিকস

অব্রি অরগানিকস ; Source: naturalisbetter.com

জৈব রসায়নে ডক্টরেট করা অব্রি হ্যাম্পটন নিউইয়র্কের তীব্র শীত থেকে ত্বককে সুরক্ষা দিতে  নারিকেল তেলের সাথে  ইউক্যালিপ্টাসের পাতা, স্থল আদা ও পুদিনাপাতা মিশিয়ে গোসলের পর  গায়ে মাখার একটি তেল উদ্ভাবন করেছিলেন। সেই ধারাবাহিকতায় ১৯৬৭ সালে তিনি অব্রি অরগানিকস প্রতিষ্ঠা করেন। চার দশক পর, বিশ্বজুড়ে প্রায় ৪৫০০ টি নিজস্ব দোকানে অব্রি শ্যাম্পুসহ ত্বক ও চুলের যত্নে বিভিন্ন হারবাল পণ্য পাওয়া যাচ্ছে।

৪. জিওভান্নি

জিওভান্নি ; Source: biovea.com

দিনের দিন পর নানান কেমিক্যালের সংস্পর্শে এসে হেয়ার স্টাইলিস্ট আর্থার গুইদোত্তির হাতে যেন ফোস্কা পড়ে যাচ্ছিল। তাই নিজের পণ্যে প্রাকৃতিক উপাদান ব্যবহারের জন্য তিনি গবেষণা শুরু করেন। সেই থেকে ১৯৭৮ সালে ক্যালিফোর্নিয়ার বেভার হিলসে তার প্রতিষ্ঠান জিওভান্নি কসমেটিকস প্রতিষ্ঠিত হয়।  বর্তমানে পুরো মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাচারাল হেয়ার কেয়ার ইন্ডাস্ট্রিতে জিওভান্নি শীর্ষস্থান দখল করে রয়েছে।

৫. রেডক্যান

রেডক্যান ; Source: groupon.ie

১৯৬০ সালে রসায়নবিদ জেরি রেডিং ও মডেল অভিনেত্রী পাউলা ক্যান্ট মিলে রেডিং প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। নিজেদের উদ্ভাবিত বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিকে কাজে লাগিয়ে রেডিং কসমেটিকস ব্যবসায় বৈপ্লবিক পরিবর্তন এনেছিল। তারাই প্রথম প্রোটিন রিকন্ডিশনারের ধারণা আনে ও শ্যাম্পুসহ নতুন নতুন প্রোটিন ভিত্তিক কসমেটিকস পণ্য উদ্ভাবন করে।

৬. সানসিল্ক

সানসিল্ক; Source: ebay.co.uk

১৯৫৪ সালে যুক্তরাজ্যে সানসিল্ক শ্যাম্পুর গোড়াপত্তন ঘটে। বর্তমানে ইউনিলিভারের এক নম্বর এই হেয়ার ব্র্যান্ডটি বাংলাদেশ, ভারত, আর্জেন্টিনা, বলিভিয়া, ব্রাজিল এবং মধ্যপ্রাচ্য ও লাতিন আমেরিকার অনেক দেশে সর্বাধিক বিক্রিত শ্যাম্পুর স্বীকৃতি পেয়েছে। তবে শুধু সানসিল্ক নয়, বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে এটি সেডা, এলিডর বা সেডাল নামেও পরিচিত।

৭. পল মিশেল

পল মিশেল ; Source: chatters.ca

স্কটিশ আমেরিকান হেয়ার স্টাইলিস্ট পল মিশেল ও জন পল ডিজোরিয়া মিলে ১৯৮০ সালে পল মিশেল প্রতিষ্ঠা করেন। প্রথমে ক্যালিফোর্নিয়ার বেভারি হিলসে তাদের সদর দপ্তর থাকলেও পরে তা সেঞ্চুরি সিটিতে স্থানান্তরিত হয়। প্রাণীদের উপর কোন পরীক্ষা নিরীক্ষা চালানোর সম্পূর্ণ বিরোধী এই কসমেটিকস প্রতিষ্ঠানটির শ্যাম্পু, কন্ডিশনার ও চুলের যত্নে বিভিন্ন প্রসাধনী সামগ্রী ছাড়াও বেশ কয়েকটি রূপচর্চা প্রশিক্ষণ কেন্দ্র রয়েছে।

৮. নেক্সাস

নেক্সাস ; Source: nexxus.com

১৯৫৫ সালে ব্লেইন কালভার লস এঞ্জেলসে আলবার্টো কালভার নামের কসমেটিকস বিপণন প্রতিষ্ঠানটি গড়ে তুলেছিলেন। পরবর্তীতে ১৯৭৯ সালে এখানে কর্মরত কিংবদন্তি হেয়ারড্রেসার ও রসায়নবিদ জেরি রেডিং নেক্সাস হেয়ার কেয়ার প্রতিষ্ঠা করেন। নেক্সাস একটি গ্রিক শব্দ যার অর্থ “একসাথে বেঁধে ফেলা”। বিজ্ঞানকে প্রকৃতির সাথে আত্মীকরণের লক্ষ্য নিয়েই ব্র্যান্ডটির এমন নামকরণ করা হয়েছিল। বিশেষ করে পাতলা ও ভঙ্গুর চুলের যত্নে প্রোটিন, ইলাস্টিন ও মেরিন কোলাজেন সমৃদ্ধ নেক্সাস শ্যাম্পুর বেশ সুনাম রয়েছে।

৯. অ্যাভিনো

অ্যাভিনো ; Source: makeup-your-mind.net

জনসন এন্ড জনসনের শাখা প্রতিষ্ঠান অ্যাভিনোর সূত্রপাত হয়েছিল ১৯৪৫ সালে, রাইডেলি গবেষণাগারে। এই প্রতিষ্ঠানের  প্রসাধনী পণ্যগুলোতে ব্যবহৃত মূল উপাদান হল জই নামের শস্যদানা আর জইয়ের বৈজ্ঞানিক নাম হলো অ্যাভিনা স্যাটিভা, সে অনুসারেই ব্র্যান্ডটির নাম দেয়া হয় অ্যাভিনো। শ্যাম্পু ছাড়াও একজিমা, চিকেন পক্স, সানবার্নে আক্রান্ত ত্বকের শুশ্রূষার জন্য অ্যাভিনো বিভিন্ন ক্রিম তৈরি করে থাকে।

১০. প্যানটিন

প্যানটিন ; Source: snapdeal.com

১৯৪৭ সালে সুইজারল্যান্ডের হফম্যান লারোচ নামের প্রতিষ্ঠানটি প্রোভিটামিন কমপ্লেক্স ফরমুলায় একটি বিশেষ শ্যাম্পু তৈরি করে। মূল উপাদান হিসেবে প্যানথেনল ব্যবহার করায় শ্যাম্পুর নামকরণ করা হয় প্যানটিন। অবাক করা ব্যাপার হল, শ্যাম্পুটি প্রথমে স্বাস্থ্যপণ্য হিসেবে বাজারে এসেছিল! নব্বইয়ের দশকে বিশ্বের ৮০টিরও বেশি দেশে প্যানটিন শ্যাম্পু শীর্ষস্থান দখল করে রেখেছিল।

১১. গারনিয়ার

গারনিয়ার ; Source: cuckooforcoupondeals.com

বিশ্বখ্যাত কসমেটিকস প্রতিষ্ঠান লোরিয়েলের পণ্য হিসেবে গারনিয়ারের যাত্রা শুরু হয়েছিল ১৯০৪ সালে। শুধু চুলের ধরন বুঝেই নয়, আবহাওয়ার তারতম্য অনুযায়ী দেশভেদেও গারনিয়ারের শ্যাম্পু ও কন্ডিশনার বিভিন্ন রকমের হয়ে থাকে। তাছাড়া চুলের রং ও ত্বকের যত্নে বিভিন্ন প্রসাধনী সামগ্রীও গারনিয়ার উৎপাদন করে থাকে।

১২. সুয়াভ

সুয়াভ ; Source: kosheronabudget.com

১৯৩৭ সালে হেয়ার টনিক উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান হিসেবে এর যাত্রা শুরু হয়েছিল। সেই থেকে জনপ্রিয়তা লাভের পর তারা শ্যাম্পু ও কন্ডিশনার উৎপাদন ও বিপণন ব্যবসায়ও জড়িয়ে পড়ে। ১৯৭০ সালে হেলেন কারটিস ইন্ডাস্ট্রি ও ১৯৯০ সালে ইউনিলিভার সুয়াভকে কিনে নেয়। বর্তমানে লোশন, সাবান ও ডিওডরেন্টও প্রস্তুত করছে প্রতিষ্ঠানটি। মূলত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, আর্জেন্টিনা, মেক্সিকো ও কানাডায় সুয়াভের বেশ চাহিদা রয়েছে।

১৩. হারবাল এসেন্স

হারবাল এসেন্স ; Source: allure.com

১৯৭২ সালে ক্লাইরোল হারবাল এসেন্স শ্যাম্পু নামে এই ব্র্যান্ডটির জন্ম হয়। সোজা থেকে  কোঁকড়ানো,ঘন থেকে  ভঙ্গুর নানান রকমের চুলের যত্ন ও সুরক্ষার জন্য হারবাল এসেন্সের বিভিন্ন রকমের শ্যাম্পু রয়েছে।

১৪. নিউট্রোজিনা

নিউট্রোজিনা ; Source: neutrogena.com

১৯৩০ সালে ইমানুয়েল স্টোলারোফের প্রতিষ্ঠিত নিউট্রোজিনা বর্তমানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষস্থানীয় বহুজাতিক প্রতিষ্ঠান জনসন এন্ড জনসনের অধিভুক্ত। শ্যাম্পু ছাড়াও ত্বক ও চুলের যত্নে বিশেষজ্ঞদের স্বীকৃত বিভিন্ন পণ্য রয়েছে এই ব্র্যান্ডের। মূলত দক্ষিণ কোরিয়া, ভারত, যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডার মতো দেশগুলোতে নিউট্রোজিনার জনপ্রিয়তা রয়েছে।

১৫. কেরাসটাস

কেরাসটাস শ্যাম্পু ; Source: lookfantastic.com

১৯৬৪ সালে ফ্রান্সের প্যারিসে লোরিয়েল গ্রুপের তৎকালীন প্রধান নির্বাহী ফ্রাঙ্কোস ড্যালি চুলের যত্নে বিলাসবহুল ব্র্যান্ড কেরাসটাস প্রতিষ্ঠা করেন। ফ্রান্স থেকে ইউরোপে তুমুল জনপ্রিয়তা পাওয়ার পর ১৯৯০ সালে জাপানে ও ১৯৯৯ সালে উত্তর আমেরিকার বাজারে এর প্রবেশ ঘটে। ছেলে ও মেয়েদের সব ধরনের চুলের যত্নে কেরাসটাসের শ্যাম্পু, কন্ডিশনার, স্কাল্প কেয়ার ও হেয়ার মাস্কের পণ্য রয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.