অনলাইনে কাপড় কেনার ক্ষেত্রে সঠিক মাপ পাবেন যেভাবে

ঘরে বসে থাকার যুগ আজকাল আর নেই। সবাই চাকরি বা ব্যবসা নিয়ে কমবেশি ব্যস্ত। নারী-পুরুষ উভয়ে ঘরে ও বাইরে বিভিন্ন কাজ করছেন। কিন্তু আয়ের পাশাপাশি ব্যয় করার জন্য আমরা কি পর্যাপ্ত সময় পাচ্ছি? হয়তো হ্যাঁ, হয়তো না। আমাদের জীবনযাত্রাকে আরও বেশি সহজ করছে বিভিন্ন অনলাইন শপগুলো। যেখানে শুধু সময় বের করতে হয় একটা মাত্র ‘ক্লিক’ এর জন্য। ব্যস, প্রয়োজনীয় জিনিসটি আপনার বাসার গেইটে পৌঁছে যাচ্ছে।

কিন্তু অনলাইন শপিঙে কাপড় কেনার ব্যাপারে আপনি কতটুকু নিশ্চিত থাকতে পারছেন? কাপড়ের মান ও ডিজাইন ছাড়াও মাপ ও সঠিক রং বাছাইয়ের যে সুবিধাটুকু আপনি নিজে দেখে কেনার সময় পান, অনলাইনে সেই সুযোগ কোথায়?

মনে করুন, আপনি খুব বেছে বেছে একটি ডিজাইন দেখে ড্রেস অর্ডার করলেন। প্রিয় মানুষটির আজ জন্মদিন, কিন্তু আপনি বিভিন্ন কাজে মহাব্যস্ত। কাজ সেরে শপিঙে যাবার সময় পাবেন না বলে ডেলিভারির জন্য প্রায় দ্বিগুণ টাকা দিয়ে আপনি একটি ড্রেস ‘আর্জেন্ট ডেলিভারি’তে অর্ডার দিয়েছেন।

সন্ধ্যায় বাসায় ফিরে দেখলেন, আপনার প্রিয় মানুষটি মুখ অন্ধকার করে বসে আছে। যে ড্রেসটি আপনি অর্ডার করেছিলেন সেটা তার হচ্ছে না। সাইজে বড় হলেও কাটিয়ে নেয়া যেত কিন্তু ড্রেসটি একেবারেই বেখাপ্পা রকমের ছোট হয়েছে। জন্মদিনটাই মাটি হয়ে গেলো।

যা অর্ডার করলেন ও যা পেলেন; Source: Huffpost

যারা অনলাইনে নিয়মিত শপিং করে থাকেন, তারা জীবনে একবার হলেও এমন বিপদের সম্মুখীন হয়েছেন। তাই আমাদের আজকের আলোচনায় থাকছে কীভাবে অনলাইনে ঝামেলামুক্ত শপিং সম্পন্ন করবেন ও মাপমতো ড্রেস কিনতে পারবেন।

শরীরের মাপ নিন

কেনাকাটা করার আগে নিজেই শরীরের সঠিক মাপ গজ ফিতা দিয়ে মেপে রাখতে পারেন। এই মাপ প্রতি এক মাস অন্তর অন্তর পরিবর্তনশীল। তাই নতুন করে মাপ নিতে ভুলবেন না। অনলাইন শপিঙে অনেক সময় শুধু ‘স্মল”, ‘মিডিয়াম’, ‘লার্জ’ ইত্যাদি উল্লেখ থাকে। সেক্ষেত্রে ওখানকার কাস্টমার কেয়ার সার্ভিসে যারা থাকেন তাদের সাথে যোগাযোগ করে কাপড়ের মাপ জেনে নিতে পারেন।

শরীরের সম্পূর্ণ মাপ নিজে নেয়া সম্ভব নয়। যেমন : কাঁধ, হাত ও পায়ের মুহুরি, জামার লম্বাটে ঝুল ইত্যাদি। এসব ক্ষেত্রে কোনো দর্জি অথবা কোনো বন্ধুর সাহায্য নিতে পারেন।

সাইজ চার্ট; Source: Living Dead Clothing

দেশের বাইরে থেকে কিছু কেনাকাটা করতে চাইলে গুগলের সাহায্য নিতে পারেন। মহাদেশ ভেদে ওদের সাইজের একটি তালিকা দেয়া থাকে, যা থেকে আপনি সাইজ সম্পর্কে একটি স্পষ্ট ধারণা পাবেন।

তবে কোম্পানি অনুযায়ী সাইজের পরিবর্তন হতে পারে। এসব ব্যাপারেও আগে থেকেই ধারণা নিয়ে রাখা ভালো। আগেই ওইখানে কেনাকাটা করেছে এমন কাউকে পেলে সবচেয়ে বেশি ভালো হয়। যদি তা সম্ভব না হয় তাহলে নিজেই গুগল করে জেনে নিন প্রয়োজনীয় তথ্য।

নোট রাখুন

কোনো ব্র্যান্ডের কাপড় আগে থেকেই কিনলে সেই ব্র্যান্ডের সাথে আপনার শরীরের মাপের অনুপাত লিখে রাখতে পারেন। ব্র্যান্ডভেদে ড্রেসের মাপ একেক রকম হতেই পারে, যা জটিলতার সৃষ্টি করে।

কাপড়ের মাপ অনুযায়ী নোট রাখুন; Source: Wikihow

তাই এভাবে কেনাকাটার পর প্রতিবারই সাইজ টুকে রাখলে পরবর্তীতে শুধুমাত্র আপনার নিজের শরীরের মাপ থেকেই উক্ত ব্র্যান্ডের কাপড়ের মাপ জানতে পারবেন।

কাপড় কিনে নিজেই বানিয়ে নিন

এর থেকে ভালো উপায় আর দ্বিতীয়টি নেই। কোথাও কাপড়ের মাপ নিয়ে সন্দিহান হলে গজ অনুযায়ী কাপড় অনলাইন থেকে কিনে ফেলুন। গজের মাপ জানার জন্য আপনি আপনার দর্জির সাহায্য নিতে পারেন।

গজ কাপড় কিনে বানিয়ে নিন; Source: RaymondDeVellore

পছন্দ অনুযায়ী ওই মাপের গজ কাপড় কিনে দর্জির কাছ থেকে নিজেই পছন্দমত ডিজাইন দিয়ে কাপড় বানিয়ে নিন। তবে এক্ষেত্রে হাতে সপ্তাহ খানেক সময় রাখতে হবে।

কেনা বা বানানোর ক্ষেত্রে একটু বড় মাপের কাপড় কিনুন

ড্রেস যদি অনলাইনেই পেয়ে যান তাহলে প্রয়োজনের চেয়ে একটু বড় মাপের ড্রেস অর্ডার করুন। ধরুন, আপনার প্রয়োজন ৪২ সাইজের ড্রেস। নির্দ্বিধায় ৪৪ সাইজের ড্রেস অর্ডার করুন। অনেক সময় গার্মেন্টস কাপড়েও মাপে টুকটাক কিছু ভুল থেকে যায়। তাই ঝুঁকি নেওয়ার দরকার কী? ড্রেস যদি বেশি ঢিলে হয়ে যায় হাতে একটি পাতলা হেম ফোঁড় সেলাই করে মাপ ঠিক করে নিন অথবা সময় থাকলে দর্জিকে বলে কাপড় কমিয়ে আনতে পারেন।

বড় মাপের কাপড় কিনুন; Source: FashionCleaners

দর্জির কাছে কেনা কাপড় দিয়ে ড্রেস বানালেও দর্জিকে বলতে পারেন কাপড় হাতে রেখে সেলাই করার কথা, অর্থাৎ পরবর্তীতে আপনার যদি কাপড় বাড়াতে হয় তাহলে যেন সেইটুকু কাপড় পাওয়া যায়। এতে করে ড্রেসটি আপনি পরতে পারবেন অনেকদিন।

রং

অনলাইনে সাধারণত বেশিরভাগ সময়েই যে রং দেয়া থাকে সেই রং বাস্তবে পাওয়া যায় না। সঠিক রং পেতে হলে আপনি উক্ত রঙের বা শেডের রং গুগলে খুঁজে দেখতে পারেন অথবা সেই রংটিই বাস্তবে কেমন দেখায়, সে ব্যাপারে কিছুটা ধারণা নিয়ে রাখতে পারনে। আরও ভালো হয় যদি কাস্টমার কেয়ার কথা বলে কাপড়ের আসল রং দেখার সুযোগ করে নেয়া যায়।

পোষাক খুব বেশি একটা বানানো হয় না সবার, আবার একবার বানানো কাপড় বারবার ঠিক করতেও ভালো লাগে না। অনলাইনে কেনা ড্রেসও ঠিক করানো কষ্টসাধ্য হয়ে যায়। তাই এই কষ্টগুলো করে ফেলুন ড্রেস কেনার আগেই। এতে করে আপনার সময়, শক্তি ও টাকা সবকিছুরই অপচয় রোধ হবে।

Featured Image Source: Shopping manufacture

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.