কেমন হবে আপনার ঈদের সাজ

কুরবানির ঈদ একেবারে সন্নিকটে। এর মধ্যে গরু, খাসি কেনার ধুম পড়ে গেছে। ঈদে রান্নাবান্নার প্রস্তুতি থাকে অনেক, সেই সাথে থাকে সাজগোজের প্রস্তুতি। ঈদের দিন নিজেকে অন্যরকম ভাবে উপস্থাপন করা জরুরী। আট দশটা সাধারণ দিনের চেয়ে একটু আলাদা হওয়া চাই ঈদের সাজ। কারণ বন্ধুদের সাথে আড্ডায়, পরিবারের সাথে বেড়তে গেলে, আত্মীয়দের বাসায় গেলে সবাই নিজেকে অন্যদের চেয়ে প্রাণবন্ত ও সতেজ রাখতে চায়।

Photo: sarabangla.net

এখন যেহেতু প্রচণ্ড গরম, এই সময়ে ভারি সাজ ও ভারী পোশাক কোনোটাই আরামদায়ক হবে না। তাই আপনার সাজগোজ হালকা হওয়া প্রয়োজন। ভারি সাজগোজ আপনাকে খুব দ্রুত ক্লান্ত ও অস্থির করে তুলবে। তাছাড়া বাইরে গিয়েও অস্বস্তি বোধ করবেন। তাই পোশাক নির্বাচন ও সাজসজ্জায় নিয়ে আসুন বৈচিত্রতা। জেনে নিন ঈদের সাজগোজ সম্পর্কে।

সকালের সাজ

যদিও নারীদের সাজগোজের প্রস্তুতি শুরু হয় ঈদের বেশ আগে থেকে, তার বাস্তবায়ন শুরু হয় ঈদের দিন সকালে।  সকাল বেলা যেহেতু বাসায় অনেক কাজ থাকে, সেক্ষেত্রে প্রথমে আপনি হালকা ওজন ও হালকা রঙের সালোয়ার কামিজ পরতে পারেন। সুতি বা লিলেন কাপড়ের সালোয়ার কামিজ পরলে আপনি আরাম পাবেন এবং স্বাচ্ছন্দ্যে যেকোনো কাজ করতে পারবেন। আর মুখে হালকা ক্রিম লাগিয়ে ফেসপাউডার লাগাতে পারেন।

Photo: Indian Makeup and Beauty Blog

কেউ চাইলে ফাউন্ডেশন লাগিয়ে নিতে পারেন।  সাজগোজের আগে হাত ও পায়ে ম্যানিকিউর করে নিন, মুখে চন্দনের গুড়ো কিংবা উপটান লাগিয়ে মুখ পরিষ্কার করে নিন। তাহলে যেকোনো মেকআপ সহজে ত্বকে বসবে। যদি আপনার হাতে এত সময় না থাকে তাহলে আইস বক্স থেকে বরফের টুকরা বের করে তা মুখে ঘষুন। তাহলে মুখ ঠাণ্ডা হবে এবং মুখে মেকআপ ভালোভাবে বসবে।

Photo: elle.bg

সকালবেলা চোখে চিকন করে আইলাইনার লাগাতে পারেন এবং চোখের নিচে কাজল লাগাতে পারেন। আর ঠোঁটে পোশাকের সাথে মিল রেখে হালকা রঙের লিপস্টিক লাগাতে পারেন। কেউ কেউ চাইলে ভ্যাসলিন লাগাতে পারেন। যেহেতু অনেক গরম পড়েছে, চুল অবশ্যই পাঞ্চক্লিপ দিয়ে বেঁধে রাখবেন, যেন কাজ করতে গিয়ে কোনো ঝামেলা না হয়।

দুপুরের সাজ

দুপুরে যদি বেড়াতে যান কিংবা কোনো দাওয়াতে আত্মীয়ের বাসায় যান তাহলে পছন্দ অনুযায়ী আরামদায়ক পোশাক পরিধান করুন। তবে বিভিন্ন কারুকাজ ও জাঁকজমক পোশাক এড়িয়ে যাওয়া ভালো। ভারি পোশাক পরলে কিংবা জর্জেট কাপড় পরলে ত্বকে র‍্যাশ উঠতে পারে, এলার্জির সমস্যা হতে পারে।

আপনি যদি মনে করেন, ভারি পোশাকে স্বাচ্ছন্দ্যে চলাফেরা করতে পারবেন, তাহলে ভারি পোশাক পরার ঝুঁকি নিতে পারেন। ক্লিনজার দিয়ে মুখ পরিষ্কার করে মুখে সানস্ক্রিন লাগিয়ে পাঁচ থেকে ছয় মিনিট অপেক্ষা করুন। তারপর মুখে ফাউন্ডেশন, ফেসপাউডার ব্যবহার করুন ইচ্ছেমতো। গালে চকচকে রোজ পাউডার লাগাতে পারেন।

Photo: pinterest.es

চোখের উপরে পছন্দমতো বিভিন্ন রঙের আইলাইনার ও শ্যাডো ব্যবহার করুন। চোখের নিচে কাজল দিন ইচ্ছেমতো। আপনি চাইলে মোটা করেও কাজল দিতে পারেন। আইলাইনার ব্যবহার করতে পারেন চোখের লেন্সের সাথে মানানসই রেখে। কাজল কালো চোখের বদলে আপনি গাঢ় নীল, খয়েরি কিংবা বেগুনি রঙের আইলাইনার ব্যবহার করতে পারেন। ড্রামাটিক লুক পেতে এবং চোখের মাধুর্য বাড়াতে আলগা আইল্যাশ তথা পাপড়ি লাগাতে পারেন।

Photo: Quora

এতে আপনার চোখ অনেক আকর্ষণীয় হয়ে ওঠবে। আইল্যাশ লাগানোর পর মাশকারা দিন। আলগা আইল্যাশে যেন মাশকারা ঠিকভাবে বসে ও দীর্ঘস্থায়ী হয়, তাই আগে ল্যাশ প্রাইমার দিন। আর ঠোঁটে গাঢ় লিপস্টিক দিন। গাঢ় গোলাপি, কমলা, লাল কিংবা বাদামী রঙের লিপস্টিক ব্যবহার করতে পারেন। এমন সাজে আপনাকে উজ্জ্বল ও দীপ্তিময় লাগবে।

Photo: YouTube

এই ঈদে চুলকে ঝলমলে ও প্রাণবন্ত করতে বিশেষ কিছু নিয়ম মেনে চলুন। ঈদের আগের দিন চুলে হেনা প্যাক কিংবা যেকোনো প্যাক লাগান। তাহলে ঈদের দিন চুলগুলো প্রাণবন্ত থাকবে। তাছাড়া ঈদের দিন সকালে চুল শ্যাম্পু করুন, কন্ডিশনার ব্যবহার করুন। তারপর চুল শুকালে সবগুলো চুল উল্টো করে ধরে পেছন থেকে অর্থাৎ চুলের গোড়ার দিকে খানিকটা হেয়ার স্প্রে দিন। এতে চুলগুলো নেতিয়ে যাবে না। নয়তো অধিক গরমের কারণে মাথার ত্বক ঘেমে যায় এবং চুল নিস্তেজ হয়ে যায়। চুল ছেড়ে রাখতে চাইলে ছেড়ে রাখুন অথবা নিজের ইচ্ছেমতো যেকোনো ডিজাইনে চুল বেঁধে রাখুন।

রাতের সাজ

ঈদ মানেই একটু গর্জিয়াস সাজে নিজেকে আকর্ষণীয় ভাবে উপস্থাপন করা। ঈদের দিন রাতে বেড়াতে গেলে কিংবা কোনো দাওয়াতে গেলে গাঢ় রঙের শাড়ি পরুন। কারণ রাতের প্রোগ্রামে শাড়ি খুব মানায়। তাছাড়া বাঙালি নারীকে শাড়িতে অপরূপা লাগে। আপনার পছন্দ অনুযায়ী যেকোনো রঙের শাড়ি পরুন। চেষ্টা করুন গাঢ় রঙের শাড়ি বাছাই করার। কারণ রাতের পার্টিতে ভারী সাজ, শাড়ি ও মেকআপ ভালো মানায়। তবে আপনি যদি শাড়িতে অস্বস্তি অনুভব করেন, তাহলে সালোয়ার কামিজ কিংবা ফতুয়া, স্কার্ট ইত্যাদি পরতে পারেন।

Photo: Beth Bender Beauty

রাতের সাজে আপনি প্যানকেক কিংবা ফাউন্ডেশন ব্যবহার করুন। তারপর ফেস পাউডার লাগান। চোখ সাজান খুব সুন্দর করে। মোটা করে আইলাইনার ও কাজল দিন। আলগা পাপড়ি লাগালে শাড়ির সাথে বড় চোখ ও ড্রামাটিক লুক বেশ মানাবে। আগে থেকে আইল্যাশে মাশকারা দিয়ে রাখতে পারেন। চোখে বাহারি লেন্সও পরতে পারেন।

শাড়ি ও পোশাকের সাথে সামঞ্জস্য রেখে গাঢ় রঙের লিপস্টিক দিন। এতে আপনাকে অনন্য লাগবে। চুল বাঁধুন পছন্দনীয় ভাবে। ইউটিউব থেকে চুল বাঁধার বিভিন্ন স্টাইল দেখে নিতে পারেন। শাড়ির সাথে খোঁপা করলে খুব ভালো লাগে। তাই চাইলে খোঁপা করতে পারেন। তার সাথে কানে মানানসই দুল, গলায় সুন্দর মালা, চেইন কিংবা ডগবেল এবং হাতে মানানসই চুড়ি কিংবা ব্রেসলেট পরুন।

ফিচার ইমেজ সোর্সঃ  YouTube

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.