জল্পনা-কল্পনার প্লেস্টেশন ফাইভ


বিশ্বখ্যাত প্রতিষ্ঠান সনি নিজ থেকেই ঘোষণা করলো প্লে স্টেশনের সর্বশেষ সংস্করণ পিএসফোর এর জীবনচক্র এরই মাঝে শেষ হয়েছে। পিএস বা প্লেস্টেশন সিরিজের ব্যাপক জনপ্রিয়তার কারণে এখন সবার নজর এর পরবর্তী সংস্করণের দিকে। কবে আসবে সনির প্লেস্টেশন ফাইভ, যাকে সংক্ষেপে বলা চলে পিএস ফাইভ। কিংবা ভক্তদের জন্য কী আনতে চলেছে পিএস ফাইভ?

গেম খেলছেন এক গেমার ; Source : Gettyimages

পিএস ফাইভ সংক্রান্ত যেকোন ব্যাপারেই এখন পর্যন্ত বেশ চুপই আছেন সনির কর্তাব্যক্তিরা। কিন্তু এ ব্যাপারে নিশ্চিত খুব দ্রুতই পিএস ফাইভ বাজারে আসতে যাচ্ছে। সনি ইন্টারএক্টিভ এন্টারটেইনমেন্ট এর সিইও শন ল্যাডেন তার এক ইন্টারভিউতে এ নিয়ে হালকা আভাস প্রদান করেন। একই সাথে, ফিনান্সিয়াল টাইমসে দেয়া সাক্ষাৎকারে সনি প্রেসিডেন্ট কেনিচিরো ইয়াশিদা জানান, তার কোম্পানি বর্তমানে একেবারেই উন্নত এক জেনারেশনের গেমিং ডিভাইস নিয়ে কাজ করছে।

গত মে মাসে সনি ইন্টারএকটিভ এর সাবেক সিইও জন কোডেরা নিশ্চিত করেন, ২০২১ সালের আগে কোনভাবেই বাজারে আসছে না পিএস ফাইভ। যদিও টি থ্রি এর এক অনুসন্ধান অনুযায়ী, সনি ২০১৯ সালের ক্রিসমাসের আগেই পিএস ফাইভ বাজারে আনতে পারে। যা তাদের প্রতিদ্বন্দ্বী এক্স বক্স টু বাজারে আসারও বেশ কিছুটা দিন আগেই।

পিএস ফাইভ : সম্ভাব্য তারিখ

অফিসিয়াল কোন ঘোষণা না আসা পর্যন্ত পিএস ফাইভ নিয়ে সত্যিকার অর্থেই কিছু বলা সম্ভব হচ্ছে না। বিভিন্ন প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞদের মতে ২০২০ বা ২০২১ সালেই বাজারে আসতে পারে অত্যাধুনিক গেমিং ডিভাইস পিএস ফাইভ। আবার কারো কারো মতে পিএস আসতে পারে চলতি ২০১৯ সালেই। সেক্ষেত্রে অবশ্য ক্রিসমাসের মত উপলক্ষ্য বেছে নিতে পারে সনি।


প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান সনি লোগো ; Source : unsplash.com

গেমিংবোল্ট ম্যাগাজিন কথা বলতে গিয়ে প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ মাইকেল প্যাচার বলেন, “আমার মতে পিএস ফাইভ সনির পিএস ফোর প্রো সংস্করণের চেয়ে খুব বেশি পরবর্তন আনবে না। সনি এরই মাঝে গেমিং কনসোল এর জন্য একটা জীবনচক্র শুরু করেছে। আমার ধারণা, সনি খুব ভালভাবেই জানে তারা ঠিক কী করতে যাচ্ছে তাদের পরবর্তী এই ডিভাইস নিয়ে।”

তবে প্যাচারের মতে, ২০১৯ সালের শেষদিকে বা ২০২০ এর আগে পিএস ফাইভের বাজারে আসার সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি।

তবে সম্প্রতি নিজের মত আরো জোরালো করেছেন এই বিশেষজ্ঞ। তার মতামত অনুযায়ী, ২০২০ সালেই সনি গ্রাহকদের জন্য প্লেস্টেশন ফাইভ বাজারে ছাড়বে। আর ততদিনে পিএস ফোর প্রো হবে নতুন দিনের যেকোন গেমিং কনসোলের প্রাথমিক ধারণা। সেক্ষেত্রে হয়তো যেকোনো ধরনের প্লে স্টেশনের দামের ইতিবাচক পরিবর্তন আনবে সনি।

প্লেস্টেশন লোগো ; Source : unsplash.com

ওয়াল স্ট্রিট জার্নালে দেয়া নিজের সাক্ষাতে সাবেক সিইও জন কোডেরা জানিয়েছিলেন, “পরবর্তী পদক্ষেপের জন্য আমরা পুরো তিনটি বছর সময় নেবো। যাতে আমরা খুব ভাল একটি শুরু করতে পারি এবং আমাদের ভবিষ্যৎ যেন একটা নিশ্চয়তা অর্জন করতে পারে।”

তাই ক্যালেন্ডারে পিএস ফাইভের জন্য ৩ টি বছর দাগ দিয়ে রাখতে পারেন – ২০১৯, ২০২০ এবং ২০২১।

পিএস ফাইভ এবং বাজার প্রতিদ্বন্দ্বী

সেই ২০১৩ সালেই বাজারে এসেছিল পিএস ফোর। এখন ২০১৮। অনেক ভক্তের মনেই প্রশ্ন, কেন এত দেরি সনির? পিএস ফাইভ নিয়ে আসলেই কেন এত সময়ক্ষেপণ করছে জাপানের এই কোম্পানি?

উত্তরটা খুব বেশিই সহজ। আবার একটু জটিলও। মূলত নিজেদের প্রতিদ্বন্দ্বী নিয়ে ভাবতে গিয়েই খানিক বড় একটা বিরতি নিচ্ছে সনি।

সনির প্লেস্টেশনের বিপরীতে সবচেয়ে ভাল বাজার দখল করেছে মাইক্রোসফটের এক্সবক্স। বলতে গেলে পিএস ফোর ব্যবহার সংখ্যার দিক থেকে গেমিং জগতে এখনো অনেকটাই নবীন। তারচেয়েও বেশি নবীন বিল গেটসের মাইক্রোসফট কোম্পানির ডিভাইস এক্সবক্স ওয়ান এক্স।

প্লেস্টেশন ফোরে গেইম খেলছেন দুইজন গেমার ; Source : unsplash.com

এরই মাঝে মাইক্রোসফটের নজরে থাকা গেমিং বিশেষজ্ঞ জ্যাজ করডেন আভাস দিয়েছেন, খুব শীঘ্রই নতুন এক্সবক্স নিয়ে বাজিমাৎ করতে পারে মাইক্রোসফট। এক্সবক্স টু বা এক্সবক্স স্কারলেটকে খানিক সমীহই তাই করছে সনি।

আরেক গেমিং বিশেষজ্ঞ এবং টি থ্রি ম্যাগাজিনে এবং এইস ইকোনমিক রিসার্চ সেন্টারের প্রধান হিদেকি ইয়াশুদা বলেন, “পিএস ফাইভ ২০১৯ সালেই বাজারে আসতে পারে।” পিএস ফাইভের এই আগমন যাকে বলা হচ্ছে ‘নেক্সট জেনারেশন কনসোল’ এক্সবক্সের আগে এসে প্রতিদ্বন্দ্বীর প্রতি নতুন হুমকিও হতে পারে।

এছাড়া ম্যাড স্টুডিও হাজির হচ্ছে নিজস্ব ম্যাডবক্স নিয়ে। তাই সবকিছু বিবেচনায় খানিক সময় নেয়াটাকেই হয়ত উপযোগী ভাবছেন সনি কর্তৃপক্ষ।

পিএস ফাইভে কি “ফোর কে” (4K) গেমিং সম্ভব?

ফোর কে (4K) বলতে মূলত বোঝানো হচ্ছে অত্যন্ত ভাল উচ্চ পিক্সেলের গ্রাফিক্স। সনি নিজেদের আগের প্লেস্টেশন সংস্করণ পিএস ফোর প্রোতে ফোর কে গেমিং নিয়ে সাধারণ একটি দিয়ে রাখলেও এখন পর্যন্ত এটা নিশ্চিত নয় পিএস ফাইভেই কি ‘ফোর কে’ গেমিং সম্ভব কিনা।

নতুন চেকবোর্ড হার্ডওয়্যার টেকনোলজি দিয়ে প্রতিটি একক পিক্সেলকে চার পিক্সেলে উন্নীত করে সম্পূর্ণ ফোর কে গ্রাফিক্স করার বেশ ভাল প্রয়াস এরইমাঝে সনি করেছে। এমনকি সনি খুব দ্রুতই ফোর কে থেকে এইট কে প্রযুক্তির দিকে এগিয়ে যেতে পারে ধারণা অনেকের। সেক্ষেত্রে পিএস ফাইভেই হয়ত ফোর কে গেমিং এর স্বাদ পেতে পারেন গেম পাগল মানুষরা।

প্লেস্টেশন ফোর ; Source : unsplash.com

পিএস ফাইভ বনাম ভার্চুয়াল রিয়েলিটি

গেমিং কনসোলের দুনিয়াতে সনিই প্রথম যারা গেমিং এর সাথে ভার্চুয়াল রিয়েলিটিকে এক সুতোয় আনতে সক্ষম হয়েছিলো। এইজন্য অবশ্য কৃতিত্ব পাবে প্লেস্টেশন ভিআর। কিন্তু আপনি যদি প্লেস্টেশন ভিআর এবং প্লে স্টেশন ফোর প্রো এর দিকে একটু ভালভাবে নজর রাখতে পারেন তবে বুঝতেই পারবেন, নতুন সনি পিএস ফাইভে ভার্চুয়াল রিয়েলিটি একেবারেই অন্য এক মাত্রায় হাজির হতে যাচ্ছে।

বর্তমানে পিএস ভিআর খুব কম রেজ্যুলেশনে ভার্চুয়াল রিয়েলিটি সুবিধা প্রদান করছে। এমনকি এই কম রেজ্যুলেশনেই পিএস ফোরের সাথে সংযুক্ত অবস্থায় খানিক উন্নতভাবে গেমারকে উন্নত গেমিং পরিবেশ দেয়ার চেষ্টা করছে।

পিএস ফোর কন্ট্রোলার ; Source : unsplash.com

কিন্তু পিএস ফাইভে এই অবস্থার যে বেশ ভাল একটা উন্নতি হবে সেটা বোঝা যায় সনির অন্যান্য প্রতিদ্বন্দীদের গেমিং কনসোলে ভার্চুয়াল রিয়েলিটির অবস্থার মাধ্যমে।

পিএস ফাইভ এবং গেম স্ট্রিমিং

গেম স্ট্রিমিং করতে পারবেন কিনা এমন প্রশ্নের উত্তর অবশ্যই হ্যাঁ। ইতিমধ্যে প্লেস্টেশন নাউ এর মাধ্যমে সনি গেম স্ট্রিমিং এর সুবিধা গেমারদের দিয়েছে। তাহলে পিএস ফাইভে কেন নয়? অবশ্যই পিএস ফাইভে আপনি গেম স্ট্রিমিং এর সুবিধা পুরোপুরিভাবে উপভোগ করতে সক্ষম হবেন।   

জার্মানির লিপজিগের গেইম উৎসবে পিএস ফোর ব্যবহারকারী ; Source : Gettyimages

প্রায় ৬  বছরের ব্যবধানে প্লেস্টেশনের নতুন এই সংস্করণ তাই হয়তো শুরু হবে বড় অঙ্কের কোন বাজেট নিয়ে। তবে সেই শুরু কবে আর কখন তার উত্তরের জন্য অপেক্ষা আপাতত খানিক দীর্ঘ। তবে যখনই হোক নতুন পিএস ফাইভ গেম পাগল মানুষের সব আশা যে ছাড়িয়ে যাবে এই নিশ্চয়তা সনি এখনই আপনাদের দিতে পারে।

Feature Image Source : unsplash.com

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.