যত কথা ওয়ানপ্লাস সেভেন ঘিরে

নতুন কোম্পানি হিসেবে বাজারে এসেই রীতিমতো আলোড়ন তুলেছে ওয়ান প্লাস। কোম্পানির সর্বশেষ ফোন, ওয়ান প্লাস সিক্স টি নিজেদের ঐতিহ্য অনুযায়ী বিল্ড আপ কোয়ালিটি এবং নাগালের মধ্যে দামের ব্যাপারে কোন প্রকার ছাড় দেয়নি। বাজারে সিক্স টির ব্যাপক চাহিদার মাঝেই নতুনভাবে বাজারে আসার গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে ওয়ান প্লাস সেভেন নিয়ে।

ওয়ানপ্লাস মোবাইল ; Image Source : Gettyimages

স্বাভাবিকভাবেই নতুন এই ফোনে কোম্পানি তাদের আগের ফোন সিক্স টি এর সকল সীমাবদ্ধতা এবং আকর্ষণীয় ফিচারগুলোকে আরও বেশি বাড়িয়ে নিতে চাইছে। শোনা যাচ্ছে, ওয়ান প্লাস সেভেনের মাধ্যমে ইনস্ক্রিনেই প্রথমবারের মত ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর আনতে যাচ্ছে এই ফোন কোম্পানি। তবে, চীনের এই কোম্পানিটি সবচেয়ে বড় চমক আনতে যাচ্ছে অন্যভাবে। ওয়ানপ্লাস সেভেনই অন্যতম ফোন, যা স্ন্যাপড্রাগন এইট ফিফটি-ফাইভ চিপসেট (Snapdragon 855 chipset) ব্যবহার করতে যাচ্ছে।

ওয়ানপ্লাস সেভেন নিয়ে জল্পনা কল্পনা অবশ্য এখানেই শেষ নয়। সারা বিশ্বের সব গ্যাজেটপ্রেমী মানুষের আগ্রহের প্রায় অনেকটা অংশ জুড়ে আছে এই ফোন।

কবে আসছে ওয়ানপ্লাস সেভেন এবং এর সম্ভাব্য দাম

প্রাথমিক ধারণা অনুযায়ী, ২০১৯ সালের মাঝামাঝি বাজারে আসতে পারে চায়না ব্র্যান্ড ওয়ান প্লাসের নতুন ফোনটি। বিগত ২০১৮ সালের মে মাসে ওয়ানপ্লাস সিক্স টি বাজারে আসে। তাই স্বাভাবিকভাবেই অনুমান করা হচ্ছে ওয়ানপ্লাস সেভেনও মে মাসেই সবার সামনে হাজির হতে যাচ্ছে। যদিও এর আগের দুইবছর ওয়ানপ্লাস ফাইভ এবং ওয়ানপ্লাস থ্রি বাজারে আসে জুন মাসে। তাই মে মাসের পরই প্রযুক্তি জগতের আগ্রহ জুন মাসে আসা ওয়ান প্লাসের ঘোষণার দিকে।

ওয়ানপ্লাস লোগো ; Image Source : Wallpapercave.com

সারাবিশ্বের মধ্যবিত্ত সমাজের কথা চিন্তা করে বাজারে আনা ওয়ানপ্লাস সিক্স টির প্রথম বাজারমূল্য ছিল ৫৪৯ ইউএস ডলার। ইউরো অঙ্কে যা ৪৯৯ ইউরো। ওশেনিয়ান অঞ্চলে যার দাম ছিল ৫৯৯ অস্ট্রেলিয়ান ডলার এবং পরিস্থিতি অনুযায়ী ওয়ানপ্লাস নিজেদের ফোনের দাম প্রতিনিয়ত কিছুনা কিছু বাড়িয়েই চলেছে। মধ্যবিত্ত সমাজ থেকে ফোন হয়ে যাচ্ছে উচ্চ মধ্যবিত্ত সমাজের উপযোগী। তাই নতুন ফোনের দাম এর চেয়ে বেশি হলেও অবাক হবার কিছু নেই।

তবে এখানেই সব কথা শেষ নয়। আপনি যদি নতুন এই ফোনে ফাইভ জি প্রযুক্তি আশা করেন, তবে দামের অঙ্কে পরিবর্তন হবে আরো বেশি। ওয়ানপ্লাস এরই মাঝে নিশ্চিত করেছে তারা বাজারে ফাইভ জি ফোন আনার জন্য বদ্ধপরিকর। কিন্তু বলা যাচ্ছে না নতুন ওয়ানপ্লাস সেভেনেই সেই সুবিধা আসছে কিনা। কোম্পানির সিইও নিশ্চিত করেছেন ফাইভ জি ফোনের মূল্য সর্বশেষ ফোর জি নেক্সট এর তুলনায় ২০০ থেকে ৩০০ ডলার বেশি হতে পারে।

আলোড়ন তোলা ওয়ানপ্লাস থ্রি ; Image Source : Gettyimages

তাই দামের ব্যাপারে ওয়ানপ্লাস সেভেন এখন পর্যন্ত অধরা এক ফোন বলেই বিবেচিত হচ্ছে।

গুঞ্জনের ভারে ওয়ানপ্লাস সেভেন

সবচেয়ে বড় গুঞ্জন ওয়ানপ্লাস সেভেনই হতে যাচ্ছে চায়না এই কোম্পানির প্রথম ফাইভ জি ফোন। যদিও এখন পর্যন্ত নিশ্চিত না ওয়ানপ্লাস কি ফাইভ জি প্রযুক্তির একই মডেলের নতুন সেট আনবে নাকি সম্পূর্ণ আলাদা কোন মডেল। আবার ফাইভ জি প্রযুক্তি নিয়ে একেবারেই আলাদাভাবে ওয়ানপ্লাস সেভেন টি আসার সম্ভাবনাও উড়িয়ে দেয়া যাচ্ছেনা।

ওয়ানপ্লাস এর ঘোষণা অনুযায়ী ইউরোপের বাজারে তারাই প্রথম ফাইভ জি সেট আনতে যাচ্ছে। সেই লক্ষ্যে নেটওয়ার্ক কোম্পানি ইই (EE) এর সাথে খানিক কথাও এগিয়ে রেখেছে চায়না এই কোম্পানি। ধারণা করা হচ্ছে ২০১৯ এর কোন এক পর্যায়ে যুক্তরাজ্যের বাজারে আসছে এই ফোন।

সম্ভাব্য ওয়ানপ্লাস সেভেন ; Image Source : androidauthority.net

তবে সেটা কি ওয়ানপ্লাস সেভেন নাকি ওয়ানপ্লাস সেভেন টি তা নিয়ে পরিষ্কার নয় কিছুই।

এখন পর্যন্ত ওয়ানপ্লাস সেভেনের ছড়িয়ে পড়া ছবি অনুযায়ী খুব বেশি ধারণা পাওয়া না গেলেও খুব সম্ভবত নতুন প্রযুক্তির স্লাইড আউট ক্যামেরার সাথে পরিচয় করিয়ে দিচ্ছে বহুল প্রতীক্ষিত এই ফোন।

এরই সাথে থাকছে স্ন্যাপড্রাগন এইট ফিফটি-ফাইভ চিপসেট। যা ছাড়িয়ে যাচ্ছে আগের বারের স্ন্যাপড্রাগন এইট ফরটি-ফাইভ (Snapdragon 845) কে।

সেই সাথে র‍্যাম নিয়েও চমক থাকছে এই ফোনে। ওয়ানপ্লাস সিক্স টি-তে আট জিবি র‍্যামের পর ওয়ানপ্লাস সেভেনে তা কমার কোন প্রকার সুযোগ সম্ভবত থাকছেনা। এছাড়া গ্রাহক চাহিদার কথা মাথায় রেখে সংযুক্ত হতে পারে মাইক্রো এসডি কার্ড স্লট।

‘ওয়ানপ্লাস সেভেন’ ঘিরে গ্রাহক প্রত্যাশা

১। কিউএইচডি স্ক্রিন

বিগত সব সেটেই ফুল এইচডি স্ক্রিন ব্যবহার করলেও এবার খুব সম্ভবত ওয়ানপ্লাসের উচিত কিউএইচডি স্ক্রিনের ফোনের প্রতি জোর প্রদান করা। এখন পর্যন্ত নিজেদের প্রথাগত বিল্ড আপ থেকে খুব বেশি পরীক্ষা করেনি ওয়ানপ্লাস। তাই গ্রাহকদের চাহিদার কথা ভেবেই এবার কিউএইচডি স্ক্রিনের দিকে যেতে পারে চায়না কোম্পানিটি।

ওয়ানপ্লাস সিক্স ; Image Source : gsmarena

২। মাইক্রো এসডি কার্ড স্লট

অবাক করা কথা হলেও সত্য এখন পর্যন্ত ওয়ানপ্লাস কখনোই তাদের ফোনে এক্সটারনাল মেমরির সুবিধা রাখেনি। নিজেদের স্টোরেজ ক্ষমতার উপর সবসময়ই আলাদা গুরুত্ব দিয়ে ফোন বাজারে এনেছে তারা। তাই খুব বেশি কিছু না হলেও অন্তত মাইক্রো এসডি কার্ড সুবিধা নিয়েও নতুন কিছু বাজারে আসার সম্ভাবনা আছে ওয়ানপ্লাসের।

৩। ওয়াটার রেসিস্ট্যান্ট

যদিও ওয়ানপ্লাস নিজেদের আগের সেট সিক্সেই দাবি করেছিল যে সেই ফোনটি ওয়াটার রেসিস্ট্যান্ট, কিন্তু এতে কোনো প্রকার আইপি রেটিং দেখা যায়নি। তাই গ্রাহকদের মাঝে এর ওয়াটার রেসিস্ট্যান্ট সক্ষমতা নিয়ে একটা শঙ্কা ছিল সবসময়ই।

দুরন্ত ফিচার নিয়ে হাজির হচ্ছে ওয়ানপ্লাস সেভেন ; Image Source : gsmarena

এ কারণেই কোনো ভাবে পানির সংস্পর্শে আসলে এই ফোন ঠিক কতটা টিকে থাকতে পারবে সেটা কখনও পরিষ্কার করতে পারেনি কর্তৃপক্ষ। বরং পানির সংস্পর্শে আসার পর খুব দ্রুত শুকিয়ে নেয়াই ছিল এর সমাধান। নতুন ওয়ানপ্লাস সেভেনে তাই সবার আশা, এবার পুরোপুরি ওয়াটার রেসিস্ট্যান্ট মোবাইল বাজারে আনবে জনপ্রিয় কোম্পানিটি, যা গ্রাহককে বৃষ্টির দিনে বা হাইকিং এর সময় বাড়তি চিন্তা থেকে মুক্ত রাখবে।

৪। তারবিহীন চার্জিং সুবিধা

ওয়ানপ্লাস সিক্স ফোনে গ্লাস ব্যাক থাকলেও তাতে ছিল না ওয়্যারলেস চার্জিং সুবিধা। যা কিনা অন্যান্য যেকোনো কোম্পানির সাথে প্রতিযোগিতামূলক বাজারে ওয়ানপ্লাসকে অনেকখানি পিছিয়ে রেখেছে। নিজেদের স্বার্থেই এবার হয়তো ওয়্যারলেস চার্জিং সুবিধার দিকে আলোকপাত করবে তারা।

৫। স্টেরিও স্পিকার

ওয়ানপ্লাস সিক্সের সিঙ্গেল স্পিকারের পরিবর্তে এবার গ্রাহকদের চাহিদা কিছুটা উচ্চমানের স্পিকার। এটি যেকোনো ফোনের জন্যই ইতিবাচক একটি দিক। হ্যাঁ, একথা সত্য যে, লাউড স্পিকারে গান চালানো কিংবা ক্রমাগত এটি ব্যবহার করা অবশ্যই আপনার স্পিকারের উপর বাজে প্রভাব ফেলবে। কিন্তু মনে রাখবেন, ইউটিউবে মুভি দেখতে হলে কিংবা বন্ধুদের ভিড়ে গান শুনতে চাইলে আপনাকে ভরসা রাখতে হবে লাউড স্পিকার নিয়েই।

ওয়ানপ্লাস সিক্স এর পরের অপেক্ষা ওয়ানপ্লাস সেভেন ; Image Source : gsmarena

এখন পর্যন্ত ওয়ানপ্লাস সেভেন ব্যাপক জল্পনা কল্পনার ইঙ্গিত দিলেও শেষ অবধি আসলেই কী থাকছে নতুন এই ফোনে তা এখন পর্যন্ত অজানাই থাকছে সাধারণের মনের মাঝে। 

Feature Image Source : Wallpapercave.com

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.