বিশ্বসেরা ১০ জন এন্টারটেইনারের কথা

বর্তমান বিশ্বে একটি গূরুত্বপূর্ণ অংশ হিসেবে বিবেচিত হয় বিনোদন। ব্যস্ততার বেড়াজালে খেই হারিয়ে আমাদের নাগরিক জীবন যখন ঝিমিয়ে পড়ে তখন আমরা একটু বিনোদন খুজতে বিনোদন দুনিয়ার ওপর নির্ভরশীল হই। আমরা তখন সিনেমা দেখি, গান শুনি।

আজ আমাদের বিনোদন দেয়া বিনোদন জগতের মানুষগুলোর কথা বলবো। তবে সবার কথা না, আজ বলবো বিশ্বের সেরা ১০ জন এন্টারটেইনারের কথা, এন্টারটেইনার হিসেবে যাদের খ্যাতি বিশ্বজোড়া। এন্টারটেইনার হিসেবে তাদের কথা সবাই জানে। চলুন তাহলে জেনে নিই এই ১০ জন বিশ্বসেরা এন্টারটেইনারের কথা।

অ্যাডাম ড্রাইভার

অ্যাডাম ড্রাইভার ; Image Source: Variety

বিশ্বের সেরা ১০ জন এন্টারটেইনারের নামের তালিকা করতে হলে সেখানে অবশ্যই যার নামটি রাখতে হবে তিনি অ্যাডাম ড্রাইভার। হলিউডের শক্তিমান একজন তারকা অভিনেতা অ্যাডাম ড্রাইভার তার বাস্তবসম্মত অভিনয় দিয়ে পর্দার গল্পকে জীবন্ত করে তোলেন।

অ্যাডামের মাঝে যেন কী এক আশ্চর্য অভিনয় প্রতিভা রয়েছে যার সাহায্যে তিনি পর্দায় উপস্থিত সবটুকু সময় দর্শকদের মন্ত্রমুগ্ধ করে ধরে রাখেন। তার প্রমাণ স্বরূপ বলা যেতে পারে তার অভিনীত থ্রিলার চলচ্চিত্র ফোর্স অ্যাওয়াকনেসের কথা। চলচ্চিত্রটিতে তার অভিনীত আক্যালো রেনের চরিত্রের রক্ত শীতল করা অভিনয় দর্শকের শিরদাঁড়া দিয়ে শীতল স্রোত বইয়ে দিয়েছিল।

এছাড়া মিডনাইট স্পেশাল চলচ্চিত্রে একজন বিজ্ঞানী কিংবা প্যাটরসন সিনেমায় বাস চালকের অভিনয়ই বা কম কীসে? তার এই দূর্দান্ত অভিনয় তাকেও দিয়েছে দু’হাত ভরে। ফলস্বরূপ তিনি হয়ে উঠেছেন বিশ্বসেরা দশজন এন্টারটেইনারের একজন।

ক্রিস প্রাট

ক্রিস প্রাট ; Image Source: CBN.com

ক্রিস প্রাট নামক এই হলিউড অভিনেতা যেন হলিউডের একজন আশ্চর্য নক্ষত্র। হলিউডের ড্যাশিং ম্যান ক্রিসের মূল পুঁজি হলো তিনি যেকোনো চরিত্রে প্রয়োজনীয় সেরাটা ডেলিভারি দিতে পারেন। একজন অভিনেতারতো সবার আগে এই গুণটাই থাকা প্রয়োজন তাই না?

নিজের অসাধারণ অভিনয় দক্ষতার গুণে কমেডি, সিরিয়াস যেকোনো চলচ্চিত্রে দাপিয়ে বেড়াতে বেড়াতে তিনি হয়ে উঠেছেন আমেরিকার আগ্রহজনক একজন মিডিয়া ব্যাক্তিত্ব। লুফে নিয়েছেন সকল শ্রেণীর দর্শকদের ভালবাসা। ক্রিসের সাফল্য তাকে এনে দিয়েছে বিশ্বসেরা ১০ এন্টারটেইনারের অন্যতম একজন হওয়ার খেতাব।

মার্গোট রবি

মার্গোট রবি; Image Source: Flipboard

বিশ্বসেরা মনোরঞ্জনকারীদের তালিকা যে নামটি ছাড়া অসম্পূর্ণই থেকে যায় সেই নামটি হলো মার্গোট রবি। একাধারে টিভি ও চলচ্চিত্র অভিনেত্রী এই মার্গোট যতক্ষণ পর্দায় উপস্থিত থাকেন ততক্ষণ তিনি অপ্রতিরোধ্যভাবেই থাকেন। কেননা তার রয়েছে অতি আশ্চর্য অভিনয় গুণ যা তাকে করে তুলেছে হলিউডের সবচেয়ে আকর্ষনীয় নারীদের একজন।

মিষ্টি চেহারার এই নারী এরই মধ্যে তৈরী করে ফেলেছেন একটি নিজস্ব দর্শকগোষ্ঠী যারা শুধু মার্গোটকেই পর্দায় দেখতে ভালবাসে। মার্গোটের উল্লেখযোগ্য চলচিত্রগুলো হচ্ছে আই সি ইউ, ফোকাস, টার্মিনাল, বার্ডস অফ প্রে প্রভৃতি। সুহাসিনী মার্গোট দর্শকদের মন জয় করে বর্তমানে দখল করে আছেন সেরা দশ এন্টারটেইনারদের তালিকার ৮ম স্থানে।

এলেন ডি জেনারস

এলেন ডি জেনারস; Image Source: WWW.out.com

এবার যার কথা বলতে যাবো তিনি সবার কাছে কুইন অফ টিভি নামে পরিচিত। নব্বই দশকে টেলিভিশনে উপস্থাপনা করতে আসা এলেন আজও সেই একটি শাখাতেই বিচরণ করছেন। তবে তার এই বিচরনটা সম্রাজ্ঞীর মতো বিচরণ।

আমেরিকায় আজ অবধি এমন কোনো টিভি শো হয়নি যেগুলো এলেনের শোর চেয়ে অধিক জনপ্রিয়তা পেয়েছে। এলেনের হাতে শো থাকা মানে কর্তৃপক্ষের নিশ্চিন্ত হওয়া। কৌতুক, আবেগ খুনসুটি দিয়ে রাঙিয়ে রাখেন এলেন তার টিভি শোগুলো। যার ফলে বেরিয়ে আসে একেকটি প্রানবন্ত ও সফল এপিসোড।

ঠিক এভাবেই তিনি দর্শকদের মনের মতো উপহার দিতে দিতে নিজেও হয়ে উঠেছেন তাদের মনের মতো। বনে গিয়েছেন তাদের প্রিয় এন্টারটেইনারে। বর্তমানে সবার প্রিয় এই এন্টারটেইনার জায়গা করে নিয়েছেন আন্তর্জাতিক অঙ্গনে। পেয়েছেন বিশ্বের সেরা এন্টারটেইনারের একজনের স্বীকৃতি।

রায়ান রেইনোল্ডস

রায়ান রেনল্ড; Source: bizon-1m.ru

সেরা এন্টারটেইনারদের মাঝে এবার যার নাম বলবো তিনি হলিউডের একজন সুপার হিরো। তার নাম রায়ান রেইনোল্ডস। তার দূর্দান্ত অভিনয় তাকে জায়গা করে দিয়েছে বিশ্বের সেরা দশ এন্টারটেইনারের তালিকায়। রায়ান রেইনোল্ডস অভিনীত বিশ্বনন্দিত সিনেমা ডেডপুলে সুপার হিরোর ভূমিকায় রায়ানের অভিনয় দেখলেই তার এই বিশ্ব সেরা হওয়ার কারণ ভালভাবে জানতে পারবেন সবাই।

তবে মজার বিষয় হচ্ছে নিজেকে তিনি একদমই সুপারহিরো বলে দাবি করেন না। এব্যাপারে নিজের সম্পর্কে তার মন্তব্য হলো, তিনি সুপার হিরোর স্যুট পড়েছিলেন মাত্র। তিনি একজন অভিনেতা, তিনি কোন সুপারহিরো নন। কিন্তু বিনয়ী এই অভিনেতা যতই নিজেকে সাধারণ দাবী করেন না কেন, আসলে তিনি একজন অসাধারণ অভিনেতা। যার ফলস্বরূপ স্থান পেয়েছেন বিশ্বের সেরা দশ এন্টারটেইনারের তালিকার ৬ষ্ঠ স্থানটিতে।

কেনি ওয়েস্ট

পঞ্চম স্থান যিনি দখল করে আছেন তিনি একজন বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী ব্যাক্তিত্ব। একাধারে তিনি র‌্যাপার, ফ্যাশন ডিজাইনার, গীতিকার ও সুরকার। তার পুরো নাম ওমারি ওয়েস্ট হলেও তিনি মিডিয়ায় পরিচিত ১৯৭৭ সালে আটলান্টায় জন্মগ্রহনকারী ওয়েস্ট সংগীত জগতে তার বৈচিত্রতার কারণে। কেনি ওয়েস্ট।

সংগীতে তার ক্যারিয়ারের শুরু ১৯৯৬ সালে। তখন থেকে ২০০২ অবধি তার উল্লেখযোগ্য অ্যালবামগুলো হলো আর্লি ওয়ার্ক, রক এ ফেলা, দ্য কলেজ ড্রপআউট, মাই বিউটিফুল ডার্ক, দ্য লাইফ অব পাবলো, ফারদার কোলাবোরেশন প্রভৃতি। এর মধ্যে দ্য লাইফ অব পাবলো দিয়ে ২০১৭ বেশ আলোচনায় কেটেছে তার।

জেনিফার লরেন্স

এবার যার কথা বলবো তার কথা না বললেই নয়। তিনি এসময়ের একজন জনপ্রিয় হলিউড তারকা। তার ঝানু অভিনয়ের মাধ্যমে তিনি পর্দা মাতিয়ে মুগ্ধ করে রাখেন হাজার দর্শককে। নিজ মেধার জোরে ২৬ বছর বয়সী এই অভিনেত্রী হয়ে উঠেছেন হলিউডের একজন উল্লেখযোগ্য ও নির্ভরযোগ্য অভিনেত্রী।

স্বরূপ বলা যায় বিগত কয়েক বছরে জেনিফার লরেন্স অভিনীত সিনেমাগুলোর ব্যাবসাসফল সিনেমাগুলোর কথা। এই সিনেমাগুলোতে তার অভিনয় সমালোচকদের দ্বারাও প্রশংসিত হয়েছে বেশ। পর্দায় দূর্দান্ত অভিনয়ের মাধ্যমে দখল করে নিয়েছেন বিশ্বের দশ এন্টারটেইনারের চতুর্থ স্থান।

ড্রেক

বিশ্বসেরা হলিউড এন্টারটেইনারের তালিকায় তৃতীয় স্থানধারী ব্যাক্তিটি হিপ হপ গানের আত্মা হিসেবে খ্তো। কয়েক বছর ধরেই তিনি হিপ হপ গান দিয়ে মাতিয়ে রেখেছেন হিপ হপ গানের শ্রোতাদের। আমেরিকান এই হিপ হপ সিংগারের নাম : ড্রেক, যিনি এই মুহূর্তে তরুণ প্রজন্মের নিকট হালের ক্রেজ হিসেবে পরিচিত। তিনি তার গান দ্বারা তার শ্রোতাদের এতটাই সম্মোহিত করে রেখেছেন যে তার অ্যালবামগুলো মুহূর্তেই লুফে নিচ্ছে সবাই। কয়েক বছর ধরেই অ্যালবাম বিক্রির তালিকা রেকর্ডধারী স্থানে রয়েছেন তিনি।

রক

যদিও তাকে আজকাল আমরা সিনেমায় দেখছি, তবে তাকে রেসলিঙের মঞ্চে থেকেই আমরা চিনতে শুরু করেছিলাম। পর্দায় আসার আগেই রেসলারর হিসেবে তিনি জয় করে নিয়েছিলেন আমাদের মন। হয়তো সেজন্যই চলচ্চিত্রে প্রতিষ্ঠা পেতে বেশি সময় প্রয়োজন হয়নি। কাঙ্খিত মানুষটিকে রুপালী পর্দায় হারকিউলিকসসহ বিভিন্ন চরিত্রে লুফে নিয়েছে বিশ্বের সকল দর্শক।

ফালফল- রেসলার রক নায়ক হিসেবেও সফল। আর এই সফলতা এতটাই জাঁকজমক যে, তাকে এনে দিয়েছে বিশ্বের সেরা দশ এন্টারটেইনারের একজন হওয়ার সুযোগ। বিশ্বসেরা এই এন্টারটেইনারের বর্তমান সাফল্য তার অভিনীত দ্য ফেট অব দ্য ফিউরিয়াস। চলচ্চিত্রটির ব্যাপক সাফল্যই যেন প্রমাণ করে রকের বিশ্বসেরা এন্টারটেইনারের জায়গা দখল করাটা যৌক্তিক। রকের পুরো নাম ডোয়ান জনসন।

বেয়োন্সে

বিশ্বসেরা দশ এন্টারটেইনারের তালিকায় প্রথম স্থান অধিকারী ব্যাক্তিটির নাম বেয়োন্সে। একাধারে গায়িকা, গীতিকার, অভিনেত্রী বেয়োন্সের জন্ম ও বেড়ে ওঠা টেক্সাসে। বেয়োন্সের এই সাফল্য কিন্তু একদিনে ধরা দেয়নি। নাচ ও গানের সাথে তার সখ্যতা সেই ছোটবেলা থেকেই। কেননা তখন থেকেই মঞ্চে নেচে গেয়ে পারফর্ম করতে করতে তিনি বেয়োন্স হয়েছেন।

কয়েক বছর ধরেই স্বীয় প্রতিভার দ্যুতি ছড়িয়ে বিনোদন জগতের অতি উজ্জল নক্ষত্র হয়ে আছেন বেয়োন্স। তার উল্লেখ যোগ্য কাজগুলোর একটি হল লেমোনেড। লেমোনেড এতটাই সাড়া ফেলেছিল যে একে একটি অবিসংবাদিত অ্যালবাম বললে ভুল হবে। বরং একে বলা যায় ভবিষ্যত সংগীতের পথপ্রদর্শক। বিলবোর্ড, টপচার্ট থেকে শুরু করে ভক্তদের হৃদয় সর্বত্রই রাজত্ব করা এই তারকা আজ বিশ্বের সেরা দশজন এন্টাটেইনারের তালিকায় রয়েছেন প্রথম স্থানে।

Featured Image: peopledotcom

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.