বিশ্বের শীর্ষ ১০ ধনী নারী র‌্যাপার

জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বশেষে পৃথিবীর সকল শ্রেণীর সকল মানুষের নিকট গ্রহনযোগ্য হল সংগীত। দেবতার পূজো থেকে শুরু করে সরাইখানায় বেনিয়াদের মনোরন্জনে সর্বত্রই চলে সংগীতের ব্যবহার। সংগীত এমনই এক আশ্রয়স্থল যাকে আকড়ে ধরে সুখীরা সুখ ভাগ করে নিতে এবং বিরহীরা তাদের দু:খ ভুলে যেতে পারে। সংগীতের উত্তরাধুনিক একটি শাখা হলো র‌্যাপ সংগীত। তবে বয়োজ্যাষ্ঠরা র‌্যাপ সংগীত নিয়ে নাক সিটকালেও র‌্যাপের বিস্তৃতি কিন্তু থেমে যায়নি তাতে। বর্তমান বিশ্বের প্রতিটি দেশেই রয়েছে র‌্যাপ ভক্ত, শ্রোতা ও শিল্পী। পুরুষের পাশাপাশি র‌্যাপ গানে নারীদের অংশগ্রহনও উল্লেখযোগ্য। আজ এমন ১০ জন নারীর কথা বলবো যারা র‌্যাপকে সমৃদ্ধ করেছেন এবং র‌্যাপ তাদের সমৃদ্ধ করেছেন। এই ১০ জন নারী র‌্যাপার বিশ্বের সেরা বিত্তশালী নারী র‌্যাপারের তালিকাভুক্ত।

ইভ

ইভ; Image Source: Trendrr

তাকে সবাই ইভ নামে চিনলেও তার পুরো নাম কিন্তু ইভ জিহান জেফারস। ইভ একাধারে একজন অভিনেত্রী ও র‌্যাপ সিংগার। বহুমুখী প্রতিভার হলেও তার আজকের তারকা খ্যাতি ও জাকজমক অবস্থানের নেপথ্যে অবদান কিন্তু র‌্যাপ গানের। টিনেজ সময় থেকে তিনি র‌্যাপ সাথেএকসাথে চলছেন। র‌্যাপ তাকে দুহাত ভরে দিয়েছে বললেও ভুল হবে না। কেননা এই র‌্যাপই তাকে এনে দিয়েছে গ্র্যামি অ্যাওয়ার্ডের মত পুরষ্কার। আর সবচেয়ে বড় কথা হলো র‌্যাপ তাকে এনে দিয়েছে বিশ্বসেরা দশ র‌্যাপারের একজন হওয়ার মর্যাদা। কৃষ্ঞকলি ইভের উল্লেখযোগ্য র‌্যাপ গানগুলো হচ্ছে লেট মি ব্লো ইয়া মাইন্ড, গ্যাঙস্টা লাভিন এবং হু’স দ্যাট গার্ল। তবে ৩৮ বছর বয়সী এই র‌্যাপারের ক্যারিয়ারের আশীর্বাদ বললে লেট মি গানটাকেই বলা যায়। কেননা এই গানই তাকে দিয়েছে গ্র্যামি অ্যাওয়ার্ডের স্বাদ।

ইগি অ্যাজেলা

এলগি অ্যাজেলা; Image Source: YouTube

বিশ্বসেরা ১০ ধনী নারী র‌্যাপারের তালিকায় ৯ম স্থানে রয়েছেন এলজি অ্যাজেলা। অ্যাজেলার মোট সম্পদের পারিমাণের সাথে তালিকায় তার জন্য বরাদ্দকৃত আসনটার বেশ মিল রয়েছে। কেননা ধনীদের তালিকায় তিনি রয়েছেন ৯ নম্বরে আর আর তার সম্পদের পরিমাণ ১০ অর্থাৎ ১০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। ঐশ্বর্যের এ খ্যাতির দিক দিয়ে ৯ ও ১০ নম্বর সংখ্যার অধিকারী২৬ বছর বয়সী এই অষ্ট্রেলিয়ান সুন্দরী বর্তমানে দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন র‌্যাপ দুনিয়া। অ্যাজেলার উত্থান ২০১৪ সালে ইউটিউবে প্রকাশিত দুটি মিউজিক ভিডিওর মাধ্যমে। এই ক্ষেত্রে এই র‌্যাপারকে সৌভাগ্যবানই বলা চলে। কেননা তার ১ম অ্যালবাম দ্য নিউ ক্লাসিক অ্যালবাম মুক্তির পরপরই উঠে আসে আমেরিকান হিপহপ গানের টপচার্টে। তার পর আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি তাকে। একে একে সকল শ্রোতার মন জয় করে হয়ে উঠেছেন বিশ্বসেরা ১০জন ধনী নারী র‌্যাপারের তালিকায়। সৌন্দর্য ও প্রতিভার অদ্ভুত সমন্বয়ের অধিকারী এই শিল্পীর উল্লেখযোগ্য গানগুলো হচ্ছে ওয়ার্ক, বেগ ফর লাভ, ফ্যান্সি এবং ফাক লাভ।

ডিজে স্পিন্ড্রেলা

ডিজে স্পিন্ড্রেলা; Image Source: DeviantArt

যে তালিকার স্থানভুক্তদের কথা বলছি সেখানে যদি স্পিন্ড্রেলার নাম না বলি তাহলে তালিকাটাই যেন অসম্পূর্ণ থেকে যায়। কারণ স্পিনড্রেলা র‌্যাপ দুনিয়ায় আধিপত্য বিস্তারকারী নামগুলোর একটি। মাত্র ১৬ বছর বয়সে যোগ দিয়েছিলেন হিপ হপ গ্রুপ সল্ট এন পেপাতে। তারপরের গল্পতো সবারই জানা। নিজেও উঠেছেন আর গ্রুপটাকেও করেছেন সমৃদ্ধ। ফলাফল বর্তমান বিশ্বের সেরা ১০ ধনী নারীর র‌্যাপারের তালিকায় জেকে বসেছেন অষ্টম স্থানে। বহুমুখী প্রতিভাবান এই নারী একাধারে অভিনেত্রী, রেডিও হোস্ট এবং একটি বিউটি সেলুনের কর্ণধার। বর্তমানে তার মোট সম্পদের পরিমাণ ১০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার সমপরিমাণ।

চেরিল জেমস

চেরিল জেমস; Image Source: Trendrr

তার নাম চেরিল জেমস হলেও তিনি মঞ্চে র‌্যাপের সুরে ঝড় তোলেন সল্ট নাম ধারণ করে। আর তার ঝড় এতটাই অ্যলকোহলিক যে র‌্যাপ ঝড়ের নেশায় বিশ্ব মাতিয়ে তিনি আজ দখল করে নিয়েছেন বিশ্বের সেরা দশ নারী ধনী র‌্যাপারের তালিকার সপ্তম স্থানটি। ৫১ বছর বয়সী সল্ট হিপ হপ গ্রুপ সল্ট এন পেপার তিন জনের একজন। চেরিল জেমস তথা সল্ট এই গ্রুপে অবস্থানকালীন সময় ৫ টি সুপার ডুপার অ্যালবাম উপহার দেন র‌্যাপ অনুরাগীদের। ২০০২ সালে সল্ট বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন এবং এর পরপরই তিনি গ্রুপ ত্যাগ করেন। ২০০৮ সালে তিনি পুনরায় গ্রুপটির বাকি দুই সদস্য নিয়ে আবার ফিরে আসেন ঝড় তুলতে। সল্টের আরেকটি পরিচয় হল তিনি একজন অভিনেত্রী। তিনি বেশকিছু সিনেমায় তার গ্রুপের সহকর্মীদের নিয়ে অভিনয় করেছেন। বর্তমানে তার মোট সম্পদের পরিমাণ ১৪ মিলিয়ন মার্কিন ডলার সমপরিমাণ।

সান্দ্রা ডেনটন

সান্দ্রা ডেনটন: Image Source: Charlie Rose

বিশ্বের সেরা ১০ ধনী নারী র‌্যাপারদের মধ্যে অন্যতম স্থান দখল করে আছেন পেপা নামে পরিচিত আমেরিকান র‌্যাপার সান্দ্রা ডেনটন। ইতিহাসের প্রথম হিপহপ গ্রুপ সল্ট এন পেপা গ্রুপের অন্যতম সদস্য এই সান্দ্রা ডেনটন। তিনি এই গ্রুপের মেরুদণ্ড হিসেবে খ্যাত। র‌্যাপ ইন্ডাস্ট্রির একটি উজ্জল নক্ষত্র হিসেবে পরিচিত সান্দ্রা ডেনটন গ্রুপের বাইরেও তার সলো ক্যারিয়ার গড়েছেন একজন জনপ্রিয় র‌্যাপার হিসেবে। আর তার প্রমাণ সেরা দশ ধনী র‌্যাপারের তালিকায় তার নিজের আসন বুঝে নেয়া। সান্দ্রার র‌্যাপারের বাইরে আরেকটি পরিচয় হল তিনি একজন অভিনেত্রী। একাধিক সিনেমা ও টেলিভিশনেও অভিনয় করেছেন তিনি।

লিল কিম

লিল কিম; Image source: HotNewHipHop

আমেরিকান নারী র‌্যাপার লিল কিম, যার পুরো নাম কিম্বারলি ডেনিস জোনস। একাধারে তিনি একজন গীতিকার,মডেল এবং অভিনেত্রী। ১৯৯৬ সালে যাত্রা শুরু করা এই র‌্যাপার বর্তমানে র‌্যাপ দুনিয়ার অন্যতম এক নাম। এ যাবত তার ৪ টি সলো অ্যালবাম এসেছে যা তাকে নিয়ে খ্যাতি ও সাফল্যের শীর্ষে। হার্ড কোর নামক অ্যালবাম দিয়ে যাত্রা শুরু করা লিলের ক্যারিয়ারের এই ৪ টি অ্যালবাম যেন অ্যালবাম ছিল না। এরা ছিল একেকটা সাফল্যের থলে ছিল। যা তাকে নিয়ে গিয়েছে সফলতার কাঙ্খিত শিখর। তার এই ব্যাপক সফলতা যেন পাল্টে দিয়েছে তার জীবন যাত্রা। বর্তমানে সেরা ১০ নারী ধনী র‌্যাপারদের মাঝে তিনি দখল করে আছেন ৬ষ্ঠ স্থানটি। ৪ টি সলো অ্যালবাম ছাড়াও তার আরো ৩৬ টি সিংগেল ট্রাক রয়েছে যেগুলো সফলতার দিক দিয়ে তার মতোই প্রভাবশালী। তিনি জিতে নিয়েছেন গ্র্যামিসহ অসংখ্য সফলতার সৎ স্বীকৃতি।

বাহামাডিয়া

বাহামাডিয়া; Image Source: Trendrr

বর্তমান বিশ্বে র‌্যাপার দুনিয়ার নারী র‌্যাপারদের মধ্যে বিত্তশালী র‌্যাপারদের একজন হচ্ছেন বাহামাডিয়া। র‌্যাপ গানের মাধ্যমে একদিকে তিনি মন্ত্রমুগ্ধ করেছেন বিশ্বের সকল র‌্যাপ অনুরাগীদের। পাশাপাশি তিনিও এই র‌্যাপের সাকো বেয়ে তর তর করে উঠে গিয়েছেন খ্যাতি ও সাফল্যের শীর্ষে, পেয়েছেন বিশ্বব্যাপী পরিচিতি, পেয়েছেন বিত্ত ও ঐশ্বর্যের ছোয়া। বাহামাডিয়া শুধু একজন র‌্যাপার হিসেবেই পরিচিত নন, একজন শক্তি গীতিকার হিসেবেও তার বেশ সমাদর রয়েছে এর বাইরে তার নিজস্ব স্বকীয়তার জন্যও তিনি বেশ আলোচিত। র‌্যাপ অঙ্গনে বাহামাডিয়ার পথচলা শুরু ১৯৯৬ সালে। সেবছর বাহামাডিয়া কল্যাগী নামক অ্যালবাম বাজারে নিয়ে আসেন। বাহামাডিয়ার কল্যাগী এতটাই সাড়া ফেরে দেয় শ্রোতাদের মাঝে যে এটি হিপ হপ গানের টপচার্টে স্থান দখর করে ফেলে। এরপরে তিনি আরো দুটি অ্যালবাস নিয়ে আসেন। এগুলো হরো বিবি কুইন ও গুড র‌্যাপ মিউজিক। এই অ্যালবামগুলো তাকে এমন এক উচ্চতায় নিয়েছে যে তিনি হয়ে উঠেছেন বিশ্ব র‌্যাপ মিউজিকের রোল মডেল।

মিসি ইলিয়ট

মিসি ইলিয়ট; Image Source: People

সেরা ধনী নারী র‌্যাপারদের তালিকায় এবার যার নাম রয়েছে তিনি র‌্যাপ ইন্ডাস্ট্রীর একজন বিখ্যাত হিপ হপ গায়িকা। ইন্ডাস্ট্রীতে তার অসংখ্য জনপ্রিয় ও হিট তকমাধারী গান রয়েছে। তার দূর্দান্ত র‌্যাপ প্রতিভা তাকে এনে দিয়েছে তারকাদের ক্যারিয়ারের কাঙ্খিত পুরষ্কার গ্র্যামি অ্যাওয়ার্ড। তাও আবার একবার না, দুইবার না, পাঁচ পাঁচবার। তার ক্যারিয়ারের দীর্ঘ সময়ে একে একে সকল রেকর্ড ভেঙে নিজ সাফল্যের জাল বিছিয়ে দিয়েছেন তিনি বিশ্বের সকল র‌্যাপ অনুরাগীদের হৃদয় জুড়ে। র‌্যাপের কাধে পা রেখে তরতর করে একসাথে খ্যাতি ও বিত্তের হাত ধরে তিনি উঠে গিয়েছেন স্বর্ণ শিখরে। যার ফলস্বরুপ ৫০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার সমপরিমাণ সম্পদের অধিকারী ৪৫ বছর বয়সী এই কৃষ্ঞকলি বর্তমানে সেরা তালিকায় স্বমহিমায় দখল করে আছেন তৃতীয় আসনটি। পাশাপাশি তিনি একজন টিভি অভিনেত্রীও। তার উল্লেখযোগ্য গানগুলো হলো শী ইজ এ বীচ, অল এন মাই গ্রীল, গেট ইওর ফ্রেক অন প্রভৃতি। তার বিক্রিত অ্যালবামের সংখ্যা এক মিলয়নেরও অধিক।

কুইন লতিফা

কুইন লতিফা; Image Source: Hollywood Reporter

বিশ্বের সেরা দশ নারী র‌্যাপারের নামের তালিকায় চোখ বুলাতেই যে নামটি চোখে পড়বে সেটি হল কুইন লতিফা। বিশ্ব সেরা দশ নারী বিত্তশালী র‌্যাপারদের মধ্য দ্বিতীয় স্থানে রয়েছেন তিনি। এই মুহুর্তে দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন র‌্যাপ দুনিয়া। র‌্যাপ কুইন লতিফার উত্থান ১৯৮৯ সালে অল হেইল দ্য কুইন অ্যালবামটির মাধ্যমে। অল হেল দ্য কুইনের মাধ্যমে যাত্রা শুরু করা কুইনের জার্নিটা কিন্তু এই এক অ্যালবামেই সীমাবদ্ধ থাকেনি। পরবর্তীতে একে একে আরো ৬ টি অ্যালবাম বাজারে আসে তার। যার প্রত্যেকটি অ্যালবামই র‌্যাপ অনুরাগীদের মাঝে বিস্তর সাড়া ফেলে। আর তিনি বনে যান হিপ হিপ দুনিয়ার রাণী। যার স্বীকৃতি স্বরুপ নিজের ঝুলিতে নিয়ে নেন গ্র্যামি অ্যাওয়ার্ড সহ আরো অনেক অর্জন। গ্র্যামি অ্যাওয়ার্ড প্রাপ্ত এই র‌্যাপারের আরেকটি উল্লেখযোগ্য অর্জন হলো প্রথম নারী র‌্যাপার হিসেবে ২০০২ সালে শিকাগো নাম সিনেমায় সহকাী চরিত্রে অভিনয়ের জন্য হলিউডের সর্বোচ্চ পুরষ্কারর অষ্কারের জন্য মনোনীত হন। এমন অভাবনীয় খ্যাতির শিখরে অবস্থানরত এই র‌্যাপরের মোট সম্পদের পরিমাণ ৬০ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের সমপরিমাণ।

নিক্কি মিনাজ

নিকি মিনাজ; Image Source: BET Networks

এবার যার নাম বলবো তিনি অনিকা তানিয়া মারাজ। তবে তাকে বিশ্ববাসী চিনে নিকি মিনাজ নামে। র‌্যাপ দুনিয়ায় নিকি মিনাজ নামটি একটি অপ্রতিদন্দী নক্ষত্রের নাম। যার উজ্জলতার কাছে ফিকে হয়ে যায় সকল র‌্যাপারদের খ্যাতি ও অর্জন। বিশ্বের সেরা দশ ধনী নারী র‌্যাপারদের মাঝে প্রথম স্থান দখলকারী এই নারীর সৃষ্টিগুলো একত্রিত করতে গেলে দেখা যাবে অন্যান্যদের মত অসংখ্য অ্যালবাম ও সিংগেল ট্র্যাক বাজারে আনেননি তিনি। তার সৃষ্টির সংখ্যা খুবই কম, যেগুলো হাতে গুণেই শেষ করা যায়। তবে আসল চমক হলো তার ক্যারিয়ারে তিনি মাত্র তিনটি অ্যালবাম বাজারে এনেছেন যাদের প্রত্যেকটাই অর্জন করেছে অভাবনীয় সাফল্য আর এই সাফল্যই প্রমাণ করেছে এগুলোর সবগুলোই এক একটা ইতিহাস। তার এই তিনটি অ্যালবামের প্রথম দুইটি অ্যালবামই বিলবোর্ডে টপচার্টে প্রথম স্থান দখলকারী অ্যালবামের মর্যাদা লাভ করে। নিকির তৃতীয় অ্যালবামটির সাফল্যও কিন্তু কম না। এই অ্যালবামটি বাকী দুটি অ্যলবামের মতো টপচার্টে প্রথম স্থানে না থাকলেও দ্বিতীয় স্থান দখল করে নেয় অনায়াসে। ৩৪ বছর বয়সী এই র‌্যাপার যুক্ত আছেন বিশ্বের নামী দামী বাজারজাত প্রতিষ্ঠানের সাথে। এর মধ্যে অ্যাডিডাস,ম্যাক কসমেটিকস ও পেপসি উল্লেখযোগ্য।

Featured Image Source: theGrio

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.